For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

‘বাংলার প্রধান ইস‍্যু ধর্মনিরপেক্ষতার স্বপক্ষে দাঁড়ানো’ বার্তা অমর্ত্যের

.২৪'র ভোটের প্রাক্কালে বঙ্গবাসীকে এক গুরুত্বপূর্ণ বার্তা দিলেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ তথা নোবেলজয়ী মানুষ অমর্ত্য সেন।
12:01 PM Jan 13, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
‘বাংলার প্রধান ইস‍্যু ধর্মনিরপেক্ষতার স্বপক্ষে দাঁড়ানো’ বার্তা অমর্ত্যের
Courtesy - Google and Facebook
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: লোকসভা নির্বাচন(General Election 2024) যখন দুয়ারে কড়া নাড়ছে ঠিক তখনই বিদেশ থেকে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের(Viswabharati University) অধ‍্যাপক সংগঠনের সভাপতি সুদীপ্ত ভট্টাচার্যকে ইমেল করে বঙ্গবাসীকে এক গুরুত্বপূর্ণ বার্তা দিলেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ তথা নোবেলজয়ী মানুষ অমর্ত্য সেন(Amartya Sen)। জানা গিয়েছে, সেই চিঠিটি তিনি বৃহস্পতিবার দিলেও পরের দিন অর্থাৎ শুক্রবার তা তিনি তাঁর মেয়ে অন্তরা সেন সহ আরও বেশ কয়েকজনকেই পাঠিয়েছেন। সেই চিঠিতেই তিনি খোলা মনে সবাইকে আহ্বান জানিয়েছেন বাংলার মাটিতে ধর্মনিরপেক্ষতার স্বপক্ষে দাঁড়াতে। জানিয়েছেন, বাংলার রাজনৈতিক চরিত্রদের উচিত ধর্মনিরপেক্ষতা রক্ষা করা। যে কোনও মূল্যে তা রক্ষা করাই কর্তব্য। তা যেন কেউ ভুলে না যায়। মনে করা হচ্ছে এই চিঠির মাধ্যমে অমর্ত্য আদতে বার্তা দিয়েছেন, ২৪’র ভোটে বাংলার মানুষ(People of Bengal) ঠিক কাকে ভোট দেওয়া উচিত। তা জানিয়ে ও বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি। যদিও নিজ চিঠিতে তিনি কোনও রাজনৈতিক দলের সমর্থনের কথা জানাননি, তবে অস্বীকার করার উপায় নেই বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের(Mamata Banerjee) সঙ্গে অমর্ত্যবাবুর দাদা-বোনের সম্পর্কের দৌলতে এই চিঠির জেরে সব থেকে বেশি লাভবান হতে চলেছে তৃণমূলই(TMC)।  

Advertisement

নিজের চিঠিতে অমর্ত্য লিখেছেন, ‘বাংলার প্রধান ইস‍্যু ধর্মনিরপেক্ষতার স্বপক্ষে দাঁড়ানো। বাংলার ধর্মনিরপেক্ষতার দীর্ঘ ঐতিহ্য থাকা সত্বেও তা সবসময় হয়ে ওঠে না। ধর্মভিত্তিক বিভাজন ছেড়ে নিরপেক্ষ রাজনীতির প্রয়োজন বাংলার। ধর্মনিরপেক্ষ রাজনীতিকে পরাজিত হতে দেওয়া হবে একটি ভুল। বাংলার একতার চরিত্র আমাদের হারালে চলবে না। আমি আমার দাদু ক্ষিতিমোহন সেনের কথা ভাবছিলাম। তিনি বুঝিয়ে বলতেন, হিন্দু-মুসলিম ঐক্যের গুরুত্ব প্রাথমিকভাবে পরস্পরকে সহ‍্য করা নয়। গুরুত্বটা তার থেকেও অনেক বেশি। বরং বলা যায় গুরুত্বটা হল একসঙ্গে কাজ করার। যেটা ঐতিহাসিক ভাবে হয়ে এসেছে বিভিন্ন ক্ষেত্রে- প্রাচুর্যময় সাহিত্য, প্রধান স্থাপত‍্য, বিরল কারুকার্য এবং অসংখ্য যৌথ সৃজনশীলতায়।’ সেই হিসাবে দেখা যাচ্ছে বাংলার মধ্যে একমাত্র তৃণমূল কংগ্রেসই একমাত্র দল যারা বিজেপির বিরুদ্ধে সাফল্যের সঙ্গে লড়াই করে চলেছে। এখানে মমতাই একমাত্র নেত্রী যিনি নির্ভীক ও দ্বিধাহীন ভাবে মুক্তকন্ঠে বলতে পারেন, ‘ধর্ম যার যার উৎসব সবার’। অমর্ত্যও বুঝিয়ে দিয়েছেন বিজেপিকে রুখে দিতে ঠিক কাকে সমর্থন জানানো উচিত। কার পাশে দাঁড়ানো উচিত।

Advertisement

Advertisement
Tags :
Advertisement