For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

ভোট সকালে বাংলাদেশের মুন্সিগঞ্জে খুন আওয়ামী সমর্থক

এদিন সকাল থেকেই বাংলাদেশে চলছে জাতীয় সংসদের নির্বাচনের ভোটগ্রহণের পালা। তার মাঝেই খুন হয়ে গেলেন শাসক দলের এক সমর্থক।
12:50 PM Jan 07, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
ভোট সকালে বাংলাদেশের মুন্সিগঞ্জে খুন আওয়ামী সমর্থক
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: রবি সকালে ভোটগ্রহণ চলছে বাংলাদেশের(Bangladesh) বুকে। সে দেশের সর্বোচ্চ আইনসভা জাতীয় সংসদের(National Assembly) দ্বাদশ নির্বাচন(12th General Election 2024) চলছে এদিন দেশজুড়ে। জাতীয় সংসদের ৩০০টির আসনের মধ্যে এদিন ২৯৯টি আসনে ভোটগ্রহণ চলছে। ১টি আসনে প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে ভোট গ্রহণ বন্ধ আছে। দুপুর ১২টা পর্যন্ত সেই নির্বাচন মোটামুটি শান্তিপূর্ণ ভাবে চলছে বলেই জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধান নির্বাচন কমিশনার(Chief Election Commissioner of Bangladesh) কাজী হাবিবুল আউয়াল(Kazi Habibul Awal)। যদিও এরই মাঝে সামনে এসেছে মুন্সিগঞ্জে(Munshiganj) এক আওয়ামী লীগের সমর্থককে(Supporter of Awami League) ভোটকেন্দ্রের ভিতরেই কুপিয়ে খুন(Murdered) করা হয়েছে। আবার একই সঙ্গে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এটাও জানিয়েছেন, শাসক দল ভিন্ন তিনি নিজে অন্য কোনও দলের এজেন্টদের কোনও বুথে বসে থাকতে দেখেননি। কাজী হাবিবুলের এই মন্তব্যকে হাতিয়ার করেই আবার BNP’র ভাইস-চেয়ারম্যান নিতাই রায়চৌধুরী জানিয়েছেন, ‘এই সরকার গলা পর্যন্ত পর্যন্ত দুর্নীতিগ্রস্ত। এটা গণতান্ত্রিক সরকার নয়। গণতন্ত্র ছাড়া উন্নয়ন সম্ভব নয়। জনগণের অংশগ্রহণ অবশ্যই সেখানে থাকতে হবে।’ যদিও বুথগুলিতে ভোটার লাইন চোখে পড়ছে।  

Advertisement

এদিন বাংলাদেশের সাধারন নির্বাচনে প্রধান বিরোধী দল BNP সহ আরও কয়েকটি দল অংশগ্রহণ করেনি। তাঁরা ভোট বয়কটের ডাক দেওয়ার পাশাপাশি, দেশে টানা ২ দিনের বনধও ডেকেছেন। সেই আবহে গত ৩ দিন থেকেই বাংলাদেশের নানাপ্রান্তে একাধিক হিংসাত্মক ঘটনা ঘটেছে। একাধিক শিশু সহ অনেকেরই মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। তারপরেও নির্বাচন যাতে শান্তিপূর্ণ ভাবে হয় তার জন্য এদিন দেশজুড়ে ভোটের জন্য প্রচুর নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যে মোতায়েন করা হয়েছে। বাংলাদেশ সেনার ৩৮,১৫৪ জন, বাংলাদেশের নৌসেনার ২,৮২৭ জন, বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির প্রায় ৪৬,০০০ হাজার সদস্য-সহ প্রচুর নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যকে ভোটের জন্য নামানো হয়েছে। তারপরেও মুন্সিগঞ্জে ঘটেছে খুনের ঘটনা। এদিন সকাল সাড়ে ৯টা নাগাদ মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনে সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভার টেঙ্গর এলাকায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী মৃণাল কান্তি দাসের এক সমর্থককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে কাঁচি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী হাজী মহম্মদ ফয়সাল বিপ্লবের সর্মথকদের বিরুদ্ধে। মৃত ব্যক্তির নাম জিল্লুর রহমান(৪০)।  

Advertisement

আবার নরসিংদী-৪ মনোহরদী-বেলাব আসনের সল্লাবাদ ইউনিয়নের ইব্রাহিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। কেননা সেখানে বুথে ঢুকে ছাপ্পা মারার অভিযোগ উঠেছে শাসক দলের প্রার্থী তথা দেশের শিল্পমন্ত্রীর ছেলের বিরুদ্ধে। ওই আসনে প্রার্থী হয়েছেন শিল্পমন্ত্রী নরুল মজিম মেহমুদ হুমায়ুন। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, মন্ত্রীর ছেলে জোর করে ভোটকেন্দ্রে ঢুকে আসেন। পরপর আওয়ামী লীগের প্রতীক নৌকায় সিল মারেন। তার জেরে ভোট বাতিল করা হয়। যদিও সিলেট-১ আসনে নিজের ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন জানিয়েছেন, ‘আজ ছুটির দিন। উৎসবের দিন, ভোটের দিন। বিএনপির হরতাল ঢংঢাং। এগুলো মিডিয়াতে বলার জন্য বলা। টানা তিন দিনের ছুটির কারণে ভোটারদের উপস্থিতি কিছুটা কম হতে পারে। তবে যেভাবে উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যে ভোট হচ্ছে, আমরা চিন্তিত নই।’

বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে অভিনেতা তথা প্রার্থী ফেরদৌস আহমেদও জানিয়েছেন, ‘আমরা এই মুহূর্তটার জন্য অত্যন্ত উদগ্রীব ছিলাম। আমরা অত্যন্ত উত্তেজিত। প্রধানমন্ত্রী ভোট দিয়েছেন। পুরো দেশের মানুষ ভোটকেন্দ্রে আসছেন এবং ভোট দিচ্ছেন। আমি ১০০ শতাংশ নিশ্চিত যে আমরা ভোটে জিতব। আমি জিতব এবং আমার প্রধানমন্ত্রী পঞ্চমবার ক্ষমতায় ফিরবেন।’ বাংলাদেশের প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়ালও জানিয়েছেন, ‘ভোট দিয়ে ভালো লাগছে। ভোট প্রক্রিয়ায় যে স্বচ্ছতা আছে, তা যেন তুলে ধরা হয়।’ পাশাপাশি তিনি এটাও জানিয়েছেন, ‘প্রতিটা সেন্টারে আমি খোঁজ নিয়েছি। ভোট হয়েছে অল্প অল্প। ভোটার উপস্থিতি আশা করি আরও বাড়বে। নির্বাচন কমিশন শুধু ভোটটা ম্যানেজ করছে। ভোটাররা ভোট দেবেন কী দেবেন না সেটা তাঁদের ব্যাপার। বুথে নৈকা ছাড়া এজেন্ট নেই সত্যি। মনে হচ্ছে, প্রতিদ্বন্দ্বী বা প্রতিপক্ষ প্রার্থী যারা, তাঁদের পোলিং এজেন্ট দেওয়ার সামর্থ্য নেই। প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক ভোট হতে হলে কেন্দ্রে অবশ্যই প্রত্যেক প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট থাকতে হবে। আমি যেগুলো পেয়েছি, সবাই একই দলের। বাদবাকি প্রার্থীদের কোনো লোকজন দেখতে পাইনি।’

Advertisement
Tags :
Advertisement