For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

হাইকোর্টের নথি জাল করে জামিন, গ্রেফতার লালু শেখ

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ভরতপুর থেকে এদিন গ্রেফতার করা হয়েছে লালুকে। এই মামলাতেই আগেই গ্রেফতার হয়েছে লালুর ছেলে ও তাদের আইনজীবী।
02:37 PM Jan 22, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
হাইকোর্টের নথি জাল করে জামিন  গ্রেফতার লালু শেখ
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: কলকাতা হাইকোর্টের(Calcutta High Court) নথি জাল করে জামিন নেওয়ার অভিযোগে রাজ্যের গোয়েন্দা বাহিনী CID’র হাতে গ্রেফতার হল লালু শেখ নামে এক যুবক। এদিন অর্থাৎ সোমবার ভোররাতে তাকে মুর্শিদাবাদের(Murshidabad District) ভরতপুর থেকে গ্রেফতার করেছেন রাজ্যের তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকেরা। ভরতপুর থানার হরিশ্চন্দ্রপুর গ্রামে ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে খুন হন আশরাফ শেখ নামের এক ব্যক্তি। তাঁকে খুন করার অভিযোগ ওঠে লালু শেখ সহ গ্রামেরই বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে। সেই মামলায় ২০১৮ সালে দোষী সাব্যস্ত হয় লালু। তার যাবজ্জীবন সাজা ঘোষণা করে কান্দি মহকুমা আদালত। কিন্তু খুনের অভিযোগে ওই যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত বন্দি কলকাতা হাইকোর্টের নথি জাল করে নিম্ন আদালত থেকে জামিন পেয়ে যায়। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন ও সেই মামলার তদন্তভার দেওয়া হয় CID-কে। এই ঘটনায় CID বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করলেও, লালুকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। অবশেষে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ভরতপুর থেকে এদিন গ্রেফতার করা হয়েছে লালুকে।  

Advertisement

কলকাতা হাইকোর্টের তদানীন্তন প্রধান বিচারপতির নির্দেশ সংক্রান্ত ভুয়ো জামিনের নথি(Fake Bail Paper) নিম্ন আদালতে দেখিয়ে জামিন পেয়েছিল লালু। এই কারসাজিতে জড়িত থাকার অভিযোগে CID’র হাতে গ্রেফতার হয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের এক আইনজীবীও। ধৃত আইনজীবীর নাম অরিন্দম রায়। গত সপ্তাহের মঙ্গলবার তাকে কাটোয়া থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২০, ৪৬৫, ৪৬৭, ৪৬৬, ৪৬৮, ৪৬৯, ৪৭১, ৪৭২, ৪৭৩, ৪৭৪, ১২০(বি) ধারায় মামলা রুজু হয়েছে অরিন্দমের বিরুদ্ধে। তার ১৪ দিনের CID হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন মুর্শিদাবাদের কান্দি মহকুমা আদালতের(Kandi Sub Divisional Court) বিচারক সৈকত সরকার। অরিন্দমের অবশ্য দাবি, তিনি কোনও অনৈতিক কাজ করেননি। তার কথায়, ‘আমি আইনের বাইরে কোনও কাজ করিনি। আইনজীবীর নৈতিকতা বিসর্জন দিইনি। বাকিটা আদালতে জানাব।’ ২০১৫ সালের ১২ এপ্রিল আশরফ শেখকে বোমা মেরে খুনের অভিযোগ উঠেছিল লালুর বিরুদ্ধে। ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারি কান্দির মহকুমা আদালত লালুকে যাবজ্জীবন কারাবাস ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে। জরিমানা অনাদায়ে আরও ছ’মাস কারাবাসের নির্দেশ দেওয়া হয়।  

Advertisement

সাজা ঘোষণার দু’বছর পর লালু ২০২১ সালের ৬ মার্চ কান্দি আদালতে নথি পেশ করেন। তাতে তার দাবি ছিল, আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট তাকে জামিনে মুক্তি দিয়েছে। কান্দি আদালতও তাই লালুর জামিন মঞ্জুর করে ওই নথির ভিত্তিতে। কিন্তু পরে অভিযোগ ওঠে, সেই নথিটি জাল ছিল। এমন কোনও নির্দেশই হাইকোর্ট দেয়নি। সম্প্রতি কান্দি মহকুমা আদালতে সরকারপক্ষের আইনজীবী সুনীল চক্রবর্তী জামিনের নথি খতিয়ে দেখার সময় বিষয়টি নজরে আসে। আদালতের নথি জাল করার অভিযোগ ওঠার পরেই CID তদন্তের নির্দেশ দেয় কলকাতা হাইকোর্ট। এর পরে লালুর ছেলে লাবু শেখকে গ্রেফতার করে CID। গ্রেফতার হয়েছেন অরিন্দমও। CID’র দাবি, বাবার জামিনের জন্য অরিন্দমের দ্বারস্থ হয়েছিলেন লালুর ছেলে লাবু।

Advertisement
Tags :
Advertisement