For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

বালুরঘাটে অগ্নিদগ্ধ হয়ে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, তদন্তে পুলিশ

09:59 PM Mar 06, 2024 IST | Subrata Roy
বালুরঘাটে অগ্নিদগ্ধ হয়ে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু  তদন্তে পুলিশ
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি,দক্ষিণ দিনাজপুর: বিয়ের এক বছরের মাথায় এক গৃহবধূর অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যুর ঘটনায় চাঞ্চল্য। ঘটনার পর পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বালুরঘাট সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। জানা গেছে, মৃত গৃহবধূর নাম পূজা পুজোহর (১৮)। বাড়ি মালদা জেলার বামনগোলা মদনাবতি এলাকায়।মৃতের পরিবার সুত্রে খবর এদিন সন্ধ্যায় রান্না করতে গিয়ে আগুনে লাগে গৃহবধূর। বিষয়টি পরিবার ও স্থানীয়দের নজরে আসতেই গৃহবধূকে উদ্ধার নিয়ে আসা হয় গঙ্গারামপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে।সেখানে চিকিৎসা চলাকালীন মৃত্যু হয় গৃহবধূর। এই ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে মৃতের পরিবার সহ এলাকাজুড়ে। ঘটনার পর ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্তের পর মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য বালুরঘাট সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ। অন্যদিকে,গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হল এক গৃহবধূ, ঘটনার তদন্তে গঙ্গারামপুর থানার(Gangarampur P.S.) পুলিশ।

Advertisement

বাপের বাড়িতে বেড়াতে এসে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হল এক গৃহবধূ। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার বিকেল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর থানার অন্তর্গত অশোকগ্রাম মৃতা গৃহবধুর নাম জয়শ্রী রায় (২৪)। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার সকাল ১০টায় সে তার শ্বশুরবাড়ি থেকে বাপের বাড়ি অশোকগ্রামে পৌঁছায়। এরপর শনিবার বিকেলে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হওয়ার চেষ্টা করে ঐ গৃহবধূ। বাড়িতে সেই সময় কেউ ছিল না। এরপর বাড়ির লোকের নজরে বিষয়টি আসতেই তড়িঘড়ি তাকে উদ্ধার করে গঙ্গারামপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। রবিবার সকালে গঙ্গারামপুর থানার পুলিশ মৃতদেহটি উদ্ধার করে বালুরঘাট জেলা হাসপাতলের(Balurghat Hospital) মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য দেহটি পাঠিয়ে পুরো ঘটনা তদন্ত শুরু করেছে গঙ্গারামপুর থানার পুলিশ।

Advertisement

ঠিক কি কারনে সে আত্মহনের পথ বেছে নিল তা নিয়ে ধন্দে রয়েছে পরিবারের লোকজন। এই বিষয়ে মৃতা গৃহবধুর মা ছায়া রায় জানান, "গতকাল অর্থাৎ শনিবার সকালে সে বাড়িতে আসে। ভালোভাবে ছিল ভালো অবস্থায় ছিল আমার সাথে অনেকক্ষণ গল্প হয় এরপর আমি কাজের জন্য বাইরে যায়। বিকেল নাগাদ আমার কাছে ফোন আসে সে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। ফিরে দেখি মৃত অবস্থায় রয়েছে আমার মেয়ে। জানিনা কেন এমনটা করল"। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঐ এলাকা জুড়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হওয়ার পাশাপাশি পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে গঙ্গারামপুর থানার পুলিশ।

Advertisement
Tags :
Advertisement