For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

বিদ্যাধরীর নিচ দিয়ে অত্যাধুনিক টানেলের মাধ্যমে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে জলের পাইপলাইন

04:42 PM Jul 10, 2024 IST | Subrata Roy
বিদ্যাধরীর নিচ দিয়ে অত্যাধুনিক টানেলের মাধ্যমে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে জলের পাইপলাইন
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি,হাড়োয়া: শিয়ালদহ থেকে ভূগর্ভ হয়ে একেবারে গঙ্গা নিচ দিয়ে হাওড়া স্টেশন পর্যন্ত চালু হয়েছে মেট্রো রেল‌ পরিষেবা।যেটি দেশের প্রথম গঙ্গার নিচ দিয়ে মেট্রো রেল পরিষেবা। শুধু গঙ্গার নিচ দিয়ে মেট্রো রেল(Metro Rail) চালু করে থেমে নেই সরকার। এবার পরিশ্রুত পানীয় জল সাধারণ মানুষের দুয়ারে পৌঁছে দিতে কাজ চলছে জল প্রকল্পের। যেটি খুব শিগগিরই সম্পন্ন হবে। উপকৃত হবে কয়েক কোটি মানুষ। সেই তালিকায় নাম রয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার, বসিরহাট মহকুমার, হাড়োয়া ব্লকের(Haroa Block)। মূলত হাড়োয়া ব্লক আটটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা নিয়ে গঠিত। মাঝখান দিয়ে বয়ে গেছে প্রাকৃতিক সীমানা অর্থাৎ বিদ্যাধরী নদী(Bidyadhari River)।

Advertisement

আর এখানেই জল প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়িত করতে নানান রকমের সমস্যা দেখা দিয়েছিল। যেমন বিদ্যাধরী সেতুর উপর দিয়ে যদি জলের পাইপ নিয়ে যাওয়া হয় সেক্ষেত্রে বিদ্যাধরী সেতু দুর্বল হবে এবং ভারসাম্য হারাবে। অন্যদিকে, নদীর উপর দিয়ে যদি ঝুলন্ত অবস্থায় নিয়ে যাওয়া হয় সে ক্ষেত্রে বিদ্যাধরী নদীর সৌন্দর্য নষ্ট হবে। তার পাশাপাশি ক্ষতিব মুখে পড়বেন ব্যবসায়ীরা। এই বিদ্যাধরী নদী ব্যবহার করে কয়েক কোটি টাকার ব্যবসা হয়। অর্থাৎ হাড়োয়ার সঙ্গে সুন্দরবন, গোসাবা(Gosaba) সহ একাধিক এলাকায় এই জলপথের মাধ্যমেই বাণিজ্য ব্যবস্থা চলে ।ফলে ক্ষতির মুখে পড়তে পারে ব্যবসায়ীরা। কিন্তু সরকারের উদ্যোগে সেটিও সমাধানের পথে। অর্থাৎ একেবারে বিদ্যাধরী নদীর যেখানে জল শেষ হয়েছে সেখান থেকে ২০ থেকে ৩০ ফুট নিচ দিয়ে প্রায় ৩৮০ মিটার লম্বা পাইপের মাধ্যমে জোড়া হবে হাড়োয়া ব্লকের দুই প্রান্তকে এবং এই জল প্রকল্পের কাজ স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে।

Advertisement

ইতিমধ্যে জোর কদমে কাজ চলছে। সংস্থা সূত্রে জানা গেছে ,প্রায় ৪২ ইঞ্চি টানেল তৈরি হবে এবং সেই টানেল অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে খোঁড়া হচ্ছে। অন্যদিকে যাতে ধস না নেমে যায় সেক্ষেত্রে ব্যবহার করা হচ্ছে রাজস্থানের(Rajasthan) একটি বিশেষ মাটি ।যেটি টানেলের ভিতরের মাটি গুলিকে ধরে রাখবে অর্থাৎ কোনো কারণে ধস নামবে না। প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে এই জলপ্রকল্পের কাজ শেষ হলে হাড়োয়া ব্লকের প্রায় আড়াই লক্ষ মানুষ উপকৃত হবে।ফলে এক কথায় বলাই যায় আগামী দিনে দুয়ারে প্রতিশ্রুত পানীয় জল পৌঁছে দেবে সরকার। সর্বদিক বাঁচিয়ে এই জল প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ায় রীতিমতো খুশি হাড়োয়াবাসী।

Advertisement
Tags :
Advertisement