For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

কলকাতা বিমানবন্দরে আত্মহত্যার চেষ্টা CISF জওয়ানের

সাতসকালে কলকাতা বিমানবন্দরে গুলি চালানোর ঘটনায় শোরগোল পড়ে গেল। যদিও সকল যাত্রী সুরক্ষিত রয়েছেন। CISF'র এক জওয়ান আত্মহত্যার চেষ্টা করেন।
10:16 AM Mar 28, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
কলকাতা বিমানবন্দরে আত্মহত্যার চেষ্টা cisf জওয়ানের
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: সাতসকালে কলকাতা বিমানবন্দরে(Kolkata Airport) গুলি চালানোর(Firing) ঘটনায় শোরগোল পড়ে গেল যাত্রী থেকে আধিকারিকদের মধ্যে। বৃহস্পতিবার ভোর ৫টা নাগাদ প্রতিদিনের মতো কলকাতা বিমানবন্দরের বিভিন্ন গেটে বিমান ধরার জন্য যখন যাত্রীরা আসতে শুরু করে দিয়েছেন, ঠিক তখনই বিমানবন্দরের মূল টার্মিনালে ঢোকার ৫ নম্বর গেটের পাশে থাকা ওয়াচ টাওয়ার থেকে গুলি চলার শব্দ পাওয়া যায়। বিমানবন্দরের কর্তব্যরত CISF জওয়ানরা মুহুর্তের মধ্যে সেখানে গিয়ে দেখেন সেখানে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে আছেন তাঁদের এক সহকর্মী সি বিষ্ণু(২৫)। প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে তিনি নিজে তাঁর রাইফেল থেকেই গুলি চালিয়ে আত্মঘাতী(Jawan Attempt to Suiside) হতে চেয়েছিলেন। সার্ভিস রাইফেল থেকে নিজের থুতনির নীচে গুলি করেছিলেন তিনি।

Advertisement

জানা গিয়েছে, ওই জওয়ানের বাড়ি তেলেঙ্গানায়। তাঁকে উদ্ধার করে ভিআইপি রোডের ধারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তা৬র গলায় বুলেট বিঁধে আছে বলে জানা গিয়েছে। তবে তিনি এখনও জীবিত আছেন বলেই জানা গিয়েছে। ঘটনার পর এদিন জোর চাঞ্চল্য ছড়ায় কলকাতা বিমানবন্দরে চত্বরে। ঘটনাস্থলে CISF’র উচ্চপদস্থ আধিকারিক ও বিমানবন্দর থানার পুলিশ পৌঁছন। তবে কী কারণে ওই জওয়ান আত্মহত্যা করেছেন তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। ২০২২ সাল থেকে CISF বাহিনীতে কর্মরত ছিলেন সি বিষ্ণু। ইতিমধ্যেই তাঁর বাড়িতে খবর দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। ঘটনার পরে যাত্রীদের মধ্যে কিছুটা হলেও চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছিল। যদিও সকাল ৭টার মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যায়। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, এই ঘটনার জেরে বিমান চলাচলের ক্ষেত্রে কোনও প্রভাব পড়েনি। সমস্ত বিমানই নিয়মিত ভাবেই চলছে।

Advertisement

জানা গিয়েছে, ওই জওয়ানের কাছে থাকা ইনসাস রাইফেল থেকেই গুলি চলেছে। সেই রাইফেলটিও উদ্ধার করা হয়েছে। এখন ওই জওয়াম আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিনার পার্ক এলাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। ইতিমধ্যেই ওই জওয়ানের আত্মহত্যার কারণ জানতে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেট এবং CISF আধিকারিকেরা পৃথক ভাবে বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন। নিয়ম অনুযায়ী, কর্তব্যরত অবস্থায় CISF জওয়ানেরা মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারেন না। তবে বিষ্ণুর মোবাইল ফোনটি পাওয়া গেলে অনেক রহস্যের জট খুলতে পারে বলে মনে করছেন তদন্তকারীরা। কর্মক্ষেত্রে কিংবা ব্যক্তিগত জীবনে তিনি হতাশ ছিলেন কি না, কিংবা অবসাদে ভুগছিলেন কি না, তা-ও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Advertisement
Tags :
Advertisement