For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

হাড়োয়ার বিদ্যাধরী নদীতে পূর্ণবয়স্ক কুমির, আতঙ্কিত মৎস্যজীবীরা

07:28 PM Jul 06, 2024 IST | Subrata Roy
হাড়োয়ার বিদ্যাধরী নদীতে পূর্ণবয়স্ক কুমির  আতঙ্কিত মৎস্যজীবীরা
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি,হাড়োয়া: উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাট মহকুমার হাড়োয়া ব্লকের খাস বালন্দা গ্রাম পঞ্চায়েতের দক্ষিণ রানীগাছির বিদ্যাধরী নদীর চরে কুমিরের(Cocodial) দেখা মিলল। প্রায় কুড়ি মিনিট ধরে নদীর পাড়ে কাদামাটি মাখা অবস্থায় কুমির বাবাজি অবস্থান করল। সেই সময় নদীতে জোয়ার থাকায় পাড়ে উঠে আসে। পাশে সুন্দরবনের জঙ্গল সেখান থেকে বেরিয়ে খাবারের সন্ধানে কুমির হয়তো ছোট নদীতে ঢুকে পড়েছে। কুমির দেখতে পেয়ে এলাকার মৎস্যজীবী থেকে স্থানীয় বাসিন্দারা আতঙ্কিত হয়ে ওঠে। পাশাপাশি এটাও শোনা যায় কি করে এই বিদ্যাধরী শাখা নদীতে কুমির ঢুকে পড়ল তাহলে কি দিক নির্ণয় করতে না পারার জন্য নদীতে ঢুকে পড়ল? না খাবারের সন্ধানে? রীতিমতো কুমির দেখা নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে হাড়োয়া গ্রাম ও শহর জুড়ে। খবর দেওয়া হয়েছে বনবিভাগে(Forest Department)।

Advertisement

রবিবার বনবিভাগ ঘটনাস্থলে যাচ্ছে বলে জানিয়ে গিয়েছে।এদিকে ,নদীর পাড়ে খেয়া ঘাটের দাবিতে বিক্ষোভ গ্রামবাসীদের ।হিঙ্গলগঞ্জের " ডাসা "নদীর কুমিরমারি এলাকার ঘটনা ।এখানে কুমিরমারি খেয়াঘাটে একটি জেটিঘাট ছিল । কিন্তু বছর ৬ আগে জেটি ঘাটের মাঝখান দিয়ে ভেঙে জেটি থেকে ঘাট আলাদা হয়ে যায় । ফলে নৌকা থেকে মানুষের ওঠানামা খুবই সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়। স্কুল-কলেজের পড়ুয়া থেকে শুরু করে অসুস্থ রোগী এখান থেকে পার করতে হয়। এছাড়াও বিভিন্ন কাজে প্রতি নিয়ত মানুষ যাতায়াত করে এই ঘাট দিয়ে । খেয়াঘাট না থাকায় প্রতি নিয়ত দুর্ঘটনা লেগেই আছে । বয়স্ক মানুষ , অসুস্থ রুগী , স্কুল পড়ুয়াদের যাতায়াতে যথেষ্ট সমস্যা হয় । নদীর পাড়ে মাটির উপর কিছু ইট বিছিয়ে যেমন তেমন করে প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে দৈনন্দিন যাতায়াত করতে হয় হিঙ্গলগঞ্জ(Hingalganj) প্রত্যন্ত এলাকার কয়েকটি গ্রামের মানুষদের।

Advertisement

এলাকার মানুষ বহুবার পঞ্চায়েত থেকে শুরু করে বিধায়ক সবাইকে জানিয়েছে। কিন্তু আজ ৬ বছর কেটে গেলেও কোন সূরাহা হয়নি। অগত্যা শনিবার এলাকার মানুষ নদীর ঘাটে বিক্ষোভ দেখাতে বাধ্য হল ।যদিও এই বিষয়ে " রূপমারি " পঞ্চায়েতের উপ প্রধান তপন কুমার মন্ডল সমস্যার কথা স্বীকার করে নিয়ে বলেন,সত্যি কুমির খেয়া ঘাটে খুবই সমস্যা । যেটি ভেঙে গেছে । মানুষের দুর্ভোগের শেষ নেই । প্রায়দিনি দুর্ঘটনা ঘটছে । আমি এর আগেও কয়েকবার জানিয়েছি কিন্তু কোন কাজ হয়নি। আবার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাবো যাতে দ্রুত এই সমস্যার সমাধান হয়।

Advertisement
Tags :
Advertisement