For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

সহ শিক্ষকের মারে আঙুল ভাঙল প্রধান শিক্ষকের, হুলুস্থুলকাণ্ড রানিগঞ্জের স্কুলে

01:10 PM Jun 22, 2024 IST | Mainak Das
সহ শিক্ষকের মারে আঙুল ভাঙল প্রধান শিক্ষকের  হুলুস্থুলকাণ্ড রানিগঞ্জের স্কুলে
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি : স্কুলের এক শিক্ষকের মারে আঙুল ভাঙল প্রধান শিক্ষকের। অনভিপ্রেত এই ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম বর্ধমানের রানিগঞ্জ হাই স্কুলে। অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে আটক করেছে পুলিশ।

Advertisement

জানা গিয়েছে, ক্লাস নেওয়াকে কেন্দ্র করে সহ শিক্ষকের সঙ্গে ঝগড়া লাগে প্রধান শিক্ষকের। শুধু তর্কাতর্কিতেই থেমে থাকেনি, দুজনের মধ্যে মারামারি শুরু হয়ে যায়। শিক্ষক ও প্রধান শিক্ষকের মধ্যে মারামারি দেখে স্কুলের পড়ুয়ারাই পুলিশে খবর দেন। পুলিশ এসে সহ শিক্ষককে থানায় নিয়ে যায়। জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের নাম বিজয় দাস ও প্রধান শিক্ষকের নাম প্রতীম চট্টোপাধ্যায়। প্রতীমকে আহত অবস্থায় রানিগঞ্জ ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। আঙুল ভেঙে গিয়েছে প্রতীমবাবুর।

Advertisement

ইতিমধ্যে পুলিশের কাছে সহ শিক্ষক বিজয়বাবুর বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগ করেছেন প্রধান শিক্ষক। অন্যদিকে প্রতীমবাবুর বিরুদ্ধেই পাল্টা অভিযোগ করেছেন বিজয়বাবু। তাঁর অভিযোগ, প্রধান শিক্ষক অন্যায়, নির্যাতন ও অত্যাচার চালিয়েছেন। পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন।

কিন্তু কী কারণে এই অশান্তি। এই প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্কুলের এক প্রধান শিক্ষক জানিয়েছেন, শিক্ষক বিজয় দাসের স্ত্রী পাপিয়া এই স্কুলেই পড়ান। পাপিয়া ক্লাসে না যাওয়া কড়া কথা শোনান প্রধান শিক্ষক। সেইসময় সেখানে হাজির ছিলেন বিজয় দাসও। তখনই বিজয়বাবুর সঙ্গে কথা কাটাকাটি শুরু হয় প্রধান শিক্ষকের। এরপরই তাঁরা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন। প্রধানশিক্ষকের নামে নালিশ করেছেন পাপিয়াও। তিনি জানান, ‘প্রধান শিক্ষক সব শিক্ষকদের সঙ্গেই খারাপ ব্যবহার করেন। কখন কাকে ক্লাস দেন, কাউকে কিছু জানান না। সেজন্যই পঠন পাঠন ঠিকমতো হচ্ছে না।‘ প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালে রানিগঞ্জ হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব নিয়েছিলেন প্রতীমবাবু। এরপর থেকেই সহ শিক্ষকদের সঙ্গে তাঁর বনিবনা হচ্ছিল না বলে অভিযোগ ওঠে। তবে প্রধান শিক্ষককে মারের ঘটনায় নিন্দায় সরব হয়েছে স্কুলের অভিভাবকরা।  

Advertisement
Tags :
Advertisement