For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

৪৫ ফুট জলের নীচে ৩ ঘন্টা শুটিং, মৃত্যু অনিবার্য ছিল হৃতিকের

তিন ঘন্টা ৪৫ ফুট নীচে জলের মধ্যে কাটাতে হয় তাঁকে। যখন হোস্ট অভিনেতাকে জিজ্ঞাসা করেন জলের ওই ডুবন্ত দৃশ্যটি তিনি করেছিলেন কিনা। সেই উত্তরে অভিনেতা বলেন, 'ওটা আমি ছিলাম, এটা আমি ছিলাম, হ্যাঁ, ৪৫ ফুট জলের নিচে তিন ঘন্টা বসেছিলাম। আমি প্রায় ডুবে গিয়েছিলাম।
06:56 PM May 30, 2024 IST | Susmita
৪৫ ফুট জলের নীচে ৩ ঘন্টা শুটিং  মৃত্যু অনিবার্য ছিল হৃতিকের
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: 'কাহো না প্যায়ার হ্যায়'- ছবিটি আজও তরুণ দর্শকদের কাছে প্রিয়। এই ছবির মাধ্যমেই বলিউড পেয়েছিল আরেক সুপারস্টারকে। হ্যাঁ নিজের বাবার ছবিতে নায়ক হয়েই বলিউডে ডেবিউ করেন হৃতিক রোশন। তাঁর নায়িকাও ছিলেন নয়া, আমিষা পাটেল। প্রথম ছবিতেই নয়া জুটি দর্শকদের বেশ আপন হয়ে উঠেছিল। ২০০০ সালে রিলিজ হয়েছিল রাকেশ রোশনের কাহো না... পেয়ার হ্যায়। এই ছবি দিয়েই বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন হৃতিক রোশন। তিনি রোহিত এবং রাজ চরিত্রে দ্বৈত চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।

Advertisement

যাই হোক, ছবির একটি দৃশ্যের কথা কি আপনাদের মনে আছে, যখন রোহিতের সমুদ্রে ডুবে মৃত্যু হয়েছিল। জানেন কি, এই দৃশ্যে অভিনয় করতে মরা-বাঁচা সমস্যার সম্মুখীন হন নায়ক। একটি পুরানো সাক্ষাৎকারে, হৃত্বিক শেয়ার করেছেন যে তিনি এই ডুবো সিকোয়েন্সের চিত্রগ্রহণের সময় প্রায় ডুবে গিয়েছিলেন। তিন ঘন্টা ৪৫ ফুট নীচে জলের মধ্যে কাটাতে হয় তাঁকে। যখন হোস্ট অভিনেতাকে জিজ্ঞাসা করেন জলের ওই ডুবন্ত দৃশ্যটি তিনি করেছিলেন কিনা। সেই উত্তরে অভিনেতা বলেন, "ওটা আমি ছিলাম, এটা আমি ছিলাম, হ্যাঁ, ৪৫ ফুট জলের নিচে তিন ঘন্টা বসেছিলাম। আমি প্রায় ডুবে গিয়েছিলাম। কিন্তু আমি সবটাই চলচ্চিত্রের জন্যে করেছিলাম। যা আমার কাছে মূল্যবান।"

Advertisement

অপ্রত্যাশিতদের জন্যে, হৃতিক রোশনের চরিত্র রোহিত কাহো না... পেয়ার হ্যায় বাইক দুর্ঘটনার কারণে নদীতে পড়ে মারা যায় কারণ সে সাঁতার জানত না। এই ছবিতে, হৃতিক রোশন, আমিশার পাশাপাশি আরও অভিনয়ে করেছিলেন অনুপম খের, আশিস বিদ্যার্থী, দালিপ তাহিল, মোহনীশ বাহল, ফরিদা জালাল এবং সতীশ শাহ। কাহো না… পেয়ার হ্যায়-এর সাফল্য বক্সঅফিসে তোলপাড় ফেলে দিয়েছিল। ২০০২ সালে, ছবিটি বিভিন্ন বিভাগে ৯২ টি পুরষ্কার সহ একটি ফিচার ফিল্মের জন্য সর্বাধিক পুরষ্কার জিতে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড স্থাপন করেছিল।

Advertisement
Tags :
Advertisement