For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

তারাপীঠে তারা মায়ের দেহ স্পর্শ করা না গেলেও চরণ স্পর্শ করা যাবে

তারা মায়ের মূল মন্দিরে মায়ের বিগ্রহ কাউকে স্পর্শ করতে না দেওয়া হলেও, গর্ভগৃহের ভিতরে থাকা দেবীর পিতলের চরণ স্পর্শ করতে পারবেন ভক্তরা।
01:53 PM Dec 20, 2023 IST | Koushik Dey Sarkar
তারাপীঠে তারা মায়ের দেহ স্পর্শ করা না গেলেও চরণ স্পর্শ করা যাবে
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: এতদিন তারাপীঠে(Tarapith) মা তারার বিগ্রহ স্পর্শ করে ফুলের মালা পরিয়ে পুজো দিয়েছেন ভক্তরা(Devotees)। কিন্তু সেই সুযোগ আর থাকছে না। ইতিমধ্যেই তারাপীঠে তারা মায়ের মূল মন্দিরের গর্ভগৃহে মায়ের দেহ স্পর্শ করে পুজো দেওয়া বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বিগ্রহের সামনে দাঁড়িয়ে ছবি বা সেলফি তোলাও। শুধু তাই নয়, মায়ের বিগ্রহও এবার ঘিরে দেওয়া হচ্ছে লোহার রেলিং দিয়ে। আর এই সব কিছু নিয়েই গত কয়েকদিন ধরে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছে তারাপীঠ মন্দির কমিটি(Tarapith Temple Committee)। সেই সমালোচনার ঝড়ের মুখে পড়ে তাঁরা এবার জানিয়েছেন, তারা মায়ের মূল মন্দিরের গর্ভগৃহে মায়ের বিগ্রহ কাউকে স্পর্শ করতে না দেওয়া হলেও, গর্ভগৃহের ভিতরে থাকা দেবীর পিতলের চরণ স্পর্শ করতে পারবেন ভক্তরা। সেখানে পুজোর অঞ্জলির ফুলও দিতে পারবেন।

Advertisement

তবে এই ছাড় দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আরও একটি বিষয়ে কড়া পদক্ষেপ করেছে মন্দির কমিটি যা নিয়ে নতুন করে সমালোচনার ঝড় ওঠার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। তারাপীঠ মন্দির কমিটির তরফে জানানো হয়েছে, আগামী ১ জানুয়ারি থেকে গর্ভগৃহের ভিতরে দেবীর সামনে অঞ্জলি দেওয়া যাবে না। , ভক্তরা পুজোর লাইনে অঞ্জলি দিতে দিতে গর্ভগৃহে প্রবেশের পর দেবীর চরণ স্পর্শ করে বেরিয়ে যাবেন। ফুল, মালা সবই মায়ের চরণে দিতে হবে। যাঁরা পুজোর লাইনে থাকবেন, তাঁরা অন্যান্য তীর্থস্থানের মতো অঞ্জলি দিতে দিতে গর্ভগৃহে প্রবেশ করে দেবীর চরণ স্পর্শ করে বেরিয়ে যাবেন। যদিও তারাপীঠ মন্দিরের নতুন নিয়ম(New Rules) নিয়ে সরব হয়েছেন ভক্তদের অনেকেই। তাঁদের দাবি, সবটাই আসলে টাকার খেলা। ভক্তদের পকেট কেটে পান্ডারা নিজেদের পকেট ভরাতে চাইছেন। তাই সব দরজা আর সুযোগ সুবিধা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু মন্দিরে নেতা, মন্ত্রী, আমলা ও বিশেষ ভক্তদের ক্ষেত্রে এইসব নিয়ম মানা হয় না। এমনকি পকেটে মোটা টাকা গুঁজে দিলেই সব নিয়ম হাওয়া হয়ে যায়।

Advertisement

এই বিষয়ে তারাপীঠ মন্দির কমিটির সভাপতি তারাময় মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ‘ভক্তদের পুজোর লাইনে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এনিয়ে বারবার অভিযোগ আসে। কী কী কারণে দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়, সেব্যাপারে আমরা পর্যালোচনা করেছিলাম। গর্ভগৃহে বিগ্রহের ছবি বা দেবীর সঙ্গে সেলফি তোলেন অনেকেই। এরজন্য পুজো দেওয়ার পরও কিছুটা সময় ভক্তরা গর্ভগৃহে থেকে যাচ্ছেন। ফলে সংকীর্ণ গর্ভগৃহে অন্য ভক্তরা ঢুকতে পারেন না। বিশৃঙ্খলা হয়। এছাড়াও অঞ্জলি দেওয়ার ক্ষেত্রেও সময় ব্যয় হয়। তাই এই সময়টাকে কমিয়ে আনতে পারলে ভক্তদের পুজো দেওয়ার লাইন সচল থাকবে। তারজন্য এতে সব ভক্তই মায়ের দর্শন পাবেন। তেমনই হাজার হাজার ফুলের মালায় দেবীর সাজ নষ্ট হবে না। ভক্তরা সবসময় দেবীকে রাজবেশে দর্শন করতে পাবেন। বর্তমানে দেবীর বিগ্রহের সামনের অংশ পিতলের রেলিং দিয়ে ঘেরা আছে। নতুন বছর শুরুর আগেই সেই রেলিংয়ের উচ্চতা বাড়ানো হচ্ছে।’

Advertisement
Tags :
Advertisement