For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

‘দিদি আসুন, ভাই হেমন্তকে সুবিচার প্রদান করুন’, ডাক এল কল্পনার

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ডাক দিলেন হেমন্ত ঘরনী কল্পনা সোরেন। সরাসরি জানালেন, ‘দিদি আসুন, ভাই হেমন্তকে সুবিচার প্রদান করুন।’
09:42 AM Apr 08, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
‘দিদি আসুন  ভাই হেমন্তকে সুবিচার প্রদান করুন’  ডাক এল কল্পনার
Courtesy - Facebook and Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: ভাইয়ের পাশে দিদি আগেই দাঁড়িয়েছিলেন। ভাইয়ের ভোটে জিততে যাতে কোনও অসুবিধা না হয় তাই ২০১৯ সালের বিধানসভা নির্বাচনে দিদি তাঁর দলের প্রার্থী দেননি সেই রাজ্যে। সাফ জানিয়েছিলেন, ’বিজেপি বিরোধী ভোট ভাগ হোক তা আমি চাই না। ওখানে হেমন্ত লড়াই করছে। ওর পাশে দাঁড়ান সবাই।’ দিদির সেই ডাকে সাড়াও দিয়েছিল প্রতিবেশী রাজ্যের জনতা। বিজেপিকে হারিয়ে ঝাড়খন্ডের(Jharkhand) মসনদে ফিরেছিলেন ভাই হেমন্ত সোরেন(Hemanta Soren)। কিন্তু গেরুয়া শিবিরের কদর্য ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে এখন তিনি জেলবন্দী। সেই ষড়যন্ত্রের কদর্যতা এতটাই যে বাড়ির টিভি, ফ্রিজ কেনার বিল তুলে ধরে ‘প্রভু মোদি ভক্ত’ Enforcement Directorate থুড়ি ED-কে দেখাতে হচ্ছে হেমন্ত সোরেন চুরি করেছে। এই অবস্থায় ভাইকে সুবিচার দিতে দিদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে(Mamata Banerjee) ডাক দিলেন হেমন্ত ঘরনী কল্পনা সোরেন(Kalpana Soren)। সরাসরি জানালেন, ‘দিদি আসুন, ভাই হেমন্তকে সুবিচার প্রদান করুন।’

Advertisement

তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সরেনের স্ত্রী এবং ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার নেত্রী কল্পনা রবিবার নিজেই ফোন করেছিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রীক। এই দুর্দিনে তিনি দিদিকে পাশে থাকার অনুরোধ করেন। দিদিও তাঁদের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন। সূত্রের দাবি, আগামী ২১ এপ্রিল ঝাড়খণ্ডে ‘উলুগুলান মহা র‌্যালি’ অনুষ্ঠিত হতে চলেছে যা কার্যত বিজেপি বিরোধী মহাজোটের সমাবেশের চেহারা নিতে চলেছে। সেই সভায় মমতা যাতে থাকেন তার জন্য অনুরোধ করেছেন কল্পনা। যদিও সেই অনুরোধ মমতা কীভাবে রাখবেন তা জানা যায়নি। কেননা লোকসভা নির্বাচনের প্রচারের জন্য মমতার আগে থেকেই প্রচার কর্মসূচী ঠিক করা আছে। তবে যেহেতু কল্পনা নিজে মমতাকে ফোন করেছিলেন, তাই ভাতৃ জায়ার অনুরোধ প্রত্যাখান করেননি মমতা। ২১ তারিখ যেতে না পারলেও, ঝাড়খন্ডে গিয়ে ভাইয়ের হয়ে প্রচারে কল্পনার পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিতে পারেন মমতা। সেক্ষেত্রে ঝাড়খন্ডে ২টি নির্বাচনী প্রচার সভায় দেখা যাবে মমতাকে।

Advertisement

এখন প্রশ্ন হচ্ছে কল্পনা মমতাকেই ডাকলেন কেন? কারণ একটাই সারা দেশে এখন নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে সব থেকে বড় মুখ হলেন মমতাই। ঝাড়খন্ডের বুকে তৃণমূলের কোনও প্রভাব নেই, কিন্তু আদিবাসী মহলে মমতার জনপ্রিয়তা তুমুল। কেননা মমতা যেভাবে বাংলার জঙ্গলমহলের বুকে শান্তি ফিরিয়েছেন, উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ শুরু করেছেন তা দেখে ঝাড়খন্ডের আদিবাসী সমাজ তাঁর যথেষ্ট সুনাম করে। তাঁরাও চান মমতার দেখানো পথে হেঁটেই ঝাড়খন্ডেও মাওবাদী সমস্যার সমাধান হোক ও সেখানেও উন্নয়নের জোয়ার বয়ে যাক। আর ভুললে চলবে না এই আদিবাসী সমাজই ঝাড়খন্ডের শাসক দল ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার কেয়ামী ভোটার। স্বাভাবিক ভাবেই মমতা ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার পাশে দাঁড়ালে সেখানকার আদিবাসী ভোটও হেমন্ত সোরেনের দলের পাশেই থাকবে।

পাশপাশি কংগ্রেস স্বীকার করুক বা না করুক, দেশে তৈরি হওয়া বিজেপি বিরোধী জোট INDIA’র পুরো লাগাম তাঁরা নিজেদের হাতে এখনও তুলে নিতে পারেনি। শরিকদের সঙ্গে এখনও আকচাআকচি চলছে কংগ্রেসের। সেই জায়গায় মমতার সঙ্গে বাম ভিন্ন আর কোনও দলের বিরোধ নেই। আগামী দিনে তিনিই যে INDIA’র মুখ হয়ে উঠবেন না সেটাই বা কে জানে। কল্পনাও তাই অঙ্কে ভুল করেননি। উনিশের লোকসভা নির্বাচনে ঝাড়খন্ডের ১৪টি আসনের মধ্যে বিজেপি একাই জিতেছিল ১১টি আসন। সহযোগী আজসু পেয়েছিল ১টি আসন। ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা ও সহযোগী কংগ্রেসের ঝুলিতে গিয়েছিল মাত্র ১টি করে আসন। কিন্তু ২৪’র ভোটে(Loksabha Election 2024) সেই ছবি আমূল বদলে যেতে চলেছে। হেমন্তকে জেলে পুরে বিজেপি যে ভুল করেছে তার খেসারত এবার তাঁদের গুণতে হচ্ছে। সমীক্ষকদের দাবি, এবার ঝাড়খন্ডে বিজেপি তথা এনডিএ খুব জোর ৪টি আসন পাবে। বাকি ১০টি আসনই যেতে পারে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা নেতৃত্বাধীন জোটের দখলে। সেখানে মমতার উপস্থিতি সেই হিসাবকে আরও পোক্ত করবে, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই।

Advertisement
Tags :
Advertisement