For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

‘খুন করা হয়েছে কলকাতাকে’, বামেদের কাঠগড়ায় তুললেন মোদির উপদেষ্টা

প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা সঞ্জীব স্যানাল তীব্র আক্রমণ শানলেন বামেদের। তাঁর দাবি, ‘কলকাতার মৃত্যু হয়নি, খুন করা হয়েছে কলকাতাকে।’
02:47 PM Jan 01, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
‘খুন করা হয়েছে কলকাতাকে’  বামেদের কাঠগড়ায় তুললেন মোদির উপদেষ্টা
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: বামেদের ভোট অনেক আগেই চলে গিয়েছে রামের ঝুলিতে। তার জেরে বাংলার বিধানসভা(West Bengal State Assembly) থেকেও বিলিপ্ত হয়ে গিয়েছেন বামপন্থীরা। বাংলার রাজনীতির ইতিহাসে এই প্রথম রাজ্যের বিধানসভা বাম শূন্য। বামেরা যে ঘুরে দাঁড়াতে চেষ্টা করছে, এনিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু কোনও নির্বাচনে বামেদের সেই ঘুরে দাঁড়ানোর ছবি চট করে ধরা পড়ছে না। এই অবস্থায় প্রধানমন্ত্রী(Prime Minister of India) নরেন্দ্র মোদির(Narendra Modi) বাঙালি অর্থনৈতিক উপদেষ্টা(Economic Adviser) সঞ্জীব স্যানাল(Sanjeev Sanyal) তীব্র আক্রমণ শানলেন বামেদের। তাঁর দাবি, ১৯৭০-র দশকে কলকাতা(Kolkata) দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক হাব ছিল কলকাতা। এশিয়ারও অন্যতম বড় শিল্পকেন্দ্র ছিল কলকাতা। কিন্তু এরপরেই কলকাতা তথা পশ্চিমবঙ্গের অর্থনীতির এমন পতন হয়। নেপথ্যে ছিল বামেদের আত্মঘাতী আন্দোলন ও বনধের সংস্কৃতি। তাঁর সাফ দাবি, ‘কলকাতার মৃত্যু হয়নি, খুন করা হয়েছে কলকাতাকে।’

Advertisement

ঠিক কী বলেছেন সঞ্জীব? তিনি জানিয়েছেন, ‘সোশ্যালিজম ও কমিউনিজমের প্রতি আমার বিদ্বেষ হয়তো তৈরি হয়েছিল শৈশবের অভিজ্ঞতা থেকেই। যেহেতু কলকাতায় আমার বেড়ে ওঠা, আমি খুব কাছ থেকে দেখেছি কীভাবে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু ও কমিউনিস্টরা কলকাতার অর্থনীতিকে কীভাবে ধ্বংস করে দিয়েছিল। শুধু অর্থনীতিই নয়, পশ্চিমবঙ্গের বুদ্ধিজীবী মহল ও সাংস্কৃতিক পরিবেশকে নষ্ট করে দিয়েছিল। কলকাতা কোনওদিন সেই ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে পারেনি।’ একটা সময় রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর(Jyoti Basu) বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি রাজ্যে ইংরেজি শিক্ষায় বাধা দিয়েছিলেন। কম্পিউটার শিক্ষাতেও বাধা দিয়েছিলেন। সেই কারণেই অন্যান্য় রাজ্যের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় অনেকটা পিছিয়ে পড়েছিল বাংলা। একটি ইউটিউব শোতে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে সেই অভিযোগকেই ফের ফিরিয়ে এনেছেন সঞ্জীব। উল্লেখ্য, ডয়েস ব্যাঙ্কের চাকরি ছেড়ে ২০১৭ সালে সঞ্জীব কেন্দ্রের অর্থমন্ত্রকের Principal Economic Adviser হিসাবে যোগ দেন। এরপর ২০২২ সালে তিনি প্রধানমন্ত্রীর Economic Council’র সদস্য হন।

Advertisement

Advertisement
Tags :
Advertisement