For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

মুখ ঘুরিয়েছে কুড়মিরা, জঙ্গলমহলে বিপর্যয়ের আশঙ্কায় বিজেপি

২৪’র ভোটে জঙ্গলমহলের ৫টি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে যে ১টিও ধরে রাখা যাবে না সেটা বুঝেই আশঙ্কা ছড়িয়েছে বঙ্গ বিজেপির অন্দরে।
12:46 PM Feb 25, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
মুখ ঘুরিয়েছে কুড়মিরা  জঙ্গলমহলে বিপর্যয়ের আশঙ্কায় বিজেপি
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: উনিশের ভোটে জঙ্গলমহলের(Jungalmahal) ৫টি লোকসভা কেন্দ্রই চলে গিয়েছিল বিজেপির দখলে। সেই ৫ কেন্দ্র হল – পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, বিষ্ণুপুর, মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম। বিজেপির সেই জয়ের পিছনে অনুঘটক হিসাবে কাজ করেছিল কুড়মি জনজাতির(Kurmee Society) পদ্মশিবিরকে সমর্থন দেওয়ার সিদ্ধান্ত। সেই নির্বাচনের আগে জঙ্গলমহলজুড়ে প্রচারের সময়ে বিজেপির তরফে কুড়মি জনসমাজকে আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল তাঁদের বিভিন্ন দাবি পূরণে উপযুক্ত, ন্যায়সঙ্গত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কিন্তু এখন সেই কুড়মি সমাজের নেতারাই বলছেন, গত ৫ বছরে সেই সব দাবিদাওয়া পূরণ করা নিয়ে টুঁ শব্দ করেননি বিজেপির কোনও সাংসদ। কিছু করেনি কেন্দ্রের ক্ষমতাসীন বিজেপি(BJP) সরকারও। উল্টে বিজেপির বিভাজন নীতির জেরে জঙ্গলমহলে আদিবাসীদের মধ্যেই মাহাতোদের সঙ্গে কুড়মিদের বিবাদ একসময় চূড়ান্ত আকার নিয়েছিল। এবার তাই কুড়মিরা আর পদ্মশিবিরকে সমর্থন দিতে চাইছেন না। আর সেই সমর্থন না মিললে যে ২৪’র ভোটে(General Election 2024) জঙ্গলমহলের ৫টি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে যে ১টিও ধরে রাখা যাবে না সেটা বুঝেই আশঙ্কা ছড়িয়েছে বঙ্গ বিজেপির অন্দরে।

Advertisement

জঙ্গলমহলের কুড়মি সমাজের মাথারা এখন প্রকাশ্যে বলছেন, বিজেপি কুড়মিদের ধোঁকা দিয়েছে। উনিশের ভোটে জেতার জন্য কুড়মিদের ব্যবহার করা হয়েছে। কুড়মিরা আজও তপশিলী জাতি বা উপজাতি কোনও কিছুর তকমাও পায়নি। কেন্দ্রের সরকার কুড়মিদের জন্য কিছুই করেনি। তাই ২৪’র ভোটে আর বিজেপিকে সমর্থন নয়। কুড়মিদের ছাড়াই ২৪’র ভোটে লড়তে হবে কুড়মিদের। উনিশের ভোটের প্রচারের সময় ঝাড়গ্রামে এসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলে গিয়েছিলেন, লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি জয়ী হলে কুড়মিদের বিষয়টি ভাবনাচিন্তা করা হবে। বাস্তবে কিছুই হয়নি। কুড়মি জনজাতির তফসিলি উপজাতির তালিকায় অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে ৫ বছর ধরে শুধু রাজ্যের ঘাড়ে দোষ ঠেকে গিয়েছে কেন্দ্রের সরকার আর বিজেপি। কিন্তু নিজেরা কিছুই করেনি। জঙ্গলমহলের ৫টি লোকসভা কেন্দ্রের ২০ থেকে ৪০ শতাংশ ভোটার কুড়মি। এদের সমর্থনেই পদ্ম ফুটেছিল উনিশের ভোটে জঙ্গলমহলের ৫ কেন্দ্রে। এবার সেই সমর্থন কিন্তু আর পাবে না বিজেপি। সাফ জানিয়ে দিচ্ছেন কুড়মি নেতারা।

Advertisement

 এই অবস্থায় বিজেপির বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন কুড়মি সমাজের মুখ্য উপদেষ্টা অজিতপ্রসাদ মাহাত। তাঁর দাবি, উনিশের ভোটে কুড়মি জনজাতির আবেগ কাজ করেছিল। কিন্তু এই ৫ বছরে কুড়মিদের তফসিলি উপজাতির তালিকায় অন্তর্ভুক্তি নিয়ে কোনও রাজনৈতিক দল স্পষ্ট বার্তা দেয়নি। ১০ মার্চের মধ্যে আমরা জানিয়ে দেব, লোকসভা নির্বাচনে কি করণীয়। যে সিদ্ধান্তই নেওয়া হোক না কেন তা সামনের লোকসভা নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে। কী বলছে তৃণমূল(TMC)? ঝাড়গ্রাম জেলার তৃণমূলের জেলা সভাপতি তথা বিধায়ক দুলাল মুর্মু জানিয়েছেন, ‘বিজেপি কতটা ভাঁওতাবাজ, তা মানুষ বুঝে গিয়েছে। পাঁচ বছর ধরে আদিবাসী ও কুড়মি জনজাতির দাবি নিয়ে তাঁর বলার মতো কিছু নেই? কবে বলবেন? রাজ্য সরকারের যা করণীয়, তা করে পাঠানো হয়েছে। ভোটব্যাঙ্কের স্বার্থে সাঁওতাল ও কুড়মি জনজাতির মধ্যে বিভাজন করা হচ্ছে।’ সূত্রের দাবি, গতবছর যেমন পঞ্চায়েত নির্বাচনে কুড়মিরা নিজেরা প্রার্থী দিয়েছিল, বিজেপি বা তৃণমূলকে কিংবা সরাসরি কোনও রাজনৈতিক দলকে সমর্থন করেনি, তেমনি এবারও সেই পথে তাঁরা হাঁটতে পারে। যদিও তাতে জয়ের মুখ তাঁরা দেখবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ আছে। বরঞ্চ বিজেপিতে কুড়মি ভোট না গেলে লাভ হবে তৃণমূলেরই।

Advertisement
Tags :
Advertisement