For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

‘বাংলায় লুকিয়ে ছিল, দু’ঘণ্টার মধ্যে ধরে দিয়েছি’, দিনহাটায় গর্বিত মমতা

লোকগুলো তো এখানকার নয়। কর্নাটকের। বাংলায় দু’ঘণ্টা লুকিয়ে ছিল। দু’ঘণ্টার মধ্যে আমরা ধরে দিয়েছি। আমাদের পুলিশই ধরেছে - দাবি মুখ্যমন্ত্রীর।
02:04 PM Apr 12, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
‘বাংলায় লুকিয়ে ছিল  দু’ঘণ্টার মধ্যে ধরে দিয়েছি’  দিনহাটায় গর্বিত মমতা
Courtesy - Facebook and Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: বেঙ্গালুরুতে ক্যাফেতে(Bengaluru Cafe Blast Incident) গত মার্চ মাসে বিস্ফোরণের ঘটনায় এদিন অর্থাৎ শুক্রবার ভোরে রাজ্য পুলিশের(West Bengal State Police) সহযোগিতায় পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি মহকুমার দিঘার(Digha) একটি হোটেল থেকে ২জনকে গ্রেফতার করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা NIA। পরে NIA’র তরফে বিবৃতি দিয়ে এই ঘটনায় রাজ্য পুলিশের সহযোগিতার কথা স্বীকার করে নেওয়া হয়। সেই ঘটনা প্রসঙ্গে এবার মুখ খুললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee)। এদিন উত্তরবঙ্গের কোচবিহার জেলার দিনহাটাতে(Dinhata) ছিল তাঁর নির্বাচনী জনসভা। কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রের জন্য তৃণমূল প্রার্থী জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়ার সমর্থনে এদিন সেই সভা করেন তৃণমূল নেত্রী। সেই সভা থেকেই তিনি এদিন দিঘার হোটেল থেকে NIA’র গ্রেফতারি নিয়ে মুখ খোলেন। একই সঙ্গে কেন্দ্র সরকার তথা বিজেপি যেভাবে NIA’র মাধ্যমে তৃণমূলের নেতাদের গ্রেফতার করছে সেই ঘটনারও তীব্র প্রতিবাদ করেন তিনি।

Advertisement

এদিন মমতা বলেন, ‘ওদের একটা ছেলে আছে। আমরা ফোড়ংবাজ বলি, বেশি ফোড়ং কাটে। বেঙ্গালুরুতে একটা বোমা পড়েছিল। লোকগুলো তো এখানকার নয়। কর্নাটকের। আমাদের বাংলায় দু’ঘণ্টা লুকিয়ে ছিল। দু’ঘণ্টার মধ্যে আমরা ধরে দিয়েছি। আমাদের পুলিশই ধরেছে। সেখানে বলছে বাংলা সেফ নয়। তোদের গুজরাট, উত্তরপ্রদেশ সেফ? দিল্লি সেফ? বাংলার মানুষ শান্তিতে থাকে, সেটা সহ্য হয় না। বিজেপি অত্যাচারি দল। বাংলার মানুষ শান্তি পছন্দ করে যেটা বিজেপি পছন্দ করে না। অত্যাচারের সমস্ত সীমা পার করে গিয়েছে।’ উল্লেখ্য, বেঙ্গালুরুতে ক্যাফেতে বিস্ফোরণের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মুজাম্মিল শরিফকে ঘটনার ২৭ দিন পর পুলিশ গ্রেফতার করলেও আরও দুই অভিযুক্তের সন্ধান পাচ্ছিল না। এদিন পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি থেকে সেই ২জনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে NIA। বিস্ফোরণের ঘটনার পরে মুসাভির হুসেন শাজিব এবং আবদুল মাঠিন আহমেদ এ রাজ্যে চলে এসে পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি এলাকায় মাথিন ও হুসেন নামে আত্মগোপন করেছিল। এদেরই এদিন দিঘা থেকে গ্রেফতার করে NIA।

Advertisement

এর পাশাপাশি এদিন মুখ্যমন্ত্রী সরব হয়েছেন NIA-কে যেভাবে রাজনৈতিক ভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে তার বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, ‘NIA, CBI-য়ের অপব্যবহার করা হচ্ছে। NIA-কে দিয়ে মেয়েদের অসম্মান করে, সংখ্যালঘুদের ভয় দেখায়। আর কোটি টাকা ডিল করে। এক একটা ব্লকে বুথ কর্মীকে গ্রেফতার করলে তার বউ প্রার্থী হবে। তার ছেলে এজেন্ট হবে। পাড়ার লোক এজেন্ট হবে। আমি ইটের বদলে পাটকেল দিই না। আমাদের এজেন্টদের গ্রেফতার করে লাভ হবে না, গ্রেফতার করলে ওদের বাড়ির লোককে এজেন্ট করা হবে। তৃণমূলকে বলছে চোর। এরা ডাকাত। দেশ বেচেছে। নির্লজ্জ বেহায়া একটা রাজনৈতিক দল। একমাত্র আদিবাসী মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন হেমন্ত সোরেন। তাঁকেও গ্রেফতার করে রেখে দিয়েছে। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীকেও গ্রেফতার করে রেখেছে। আমাদের ছেলেমেয়েদের গ্রেফতার করছে। আমি বলছি, কোনও ব্লকে এক জনকে গ্রেফতার করলে তাঁর স্ত্রী বা পরিবারের সদস্যেরা সেখানে এজেন্ট হবেন। কেউ ছাপ্পা ভোট দিতে এলেই তাঁরা ধরবেন।’

Advertisement
Tags :
Advertisement