For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

হরিয়ানায় বাঁদরের প্রথম ছানি অপারেশন করলেন LUVAS-এর চিকিৎসকেরা

LUVAS-এর অ্যানিমেল সার্জারি এবং রেডিওলজি বিভাগের প্রধান, আরএন চৌধুরী বলেছেন, বানরটিকে ক্যাম্পাসে নিয়ে এসেছিলেন একজন পশুপ্রেমী মুনিশ, যিনি একজন হ্যান্সির বাসিন্দা, বৈদ্যুতিক শকের কারণে জখম হয়েছিল বাদরটি।
01:17 PM May 31, 2024 IST | Susmita
হরিয়ানায় বাঁদরের প্রথম ছানি অপারেশন করলেন luvas এর চিকিৎসকেরা
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: জীবে প্রেম করে যেই জন, সেই জন সেবিছে ঈশ্বর, বলেছিলেন স্বামী বিবেকানন্দ।  অর্থাৎ জীবকে যে ভালবাসবে, সে অজান্তেই ঈশ্বরের সেবা করবে। হ্যাঁ, সম্প্রতি এ কথাটা একদম মিলিয়ে দিল একটি সরকারি স্বাস্থ্য বিশ্ববিদ্যালয়। অস্ত্রোপচারের সাহায্যে অন্ধ বাঁদরের চোখ ফিরিয়ে দিল হাসপাতালের চিকিৎসকরা। ভাবা যায়! এমন অসম্ভবকে সম্ভব করে তুলেছে হরিয়ানার হিসারের একটি সরকারি স্বাস্থ্য বিশ্ববিদ্যালয়। একটি বাঁদরের সফলভাবে ছানি অস্ত্রোপচার করে বানরটির চোখ ফিরিয়ে দিল। স্বাভাবিকভাবেই উদ্যোগটি দারুণ। পশু-পাখিরা কথা বলতে পারেনা, তাদের মনের ভাব প্রকাশ করারও কোনও জায়গা নেই। তাই তাদের চোখ গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ। যার মাধ্যমে তারা সঠিক জীবনযাপন করতে পারে। এবং পরিবেশকে উপভোগ করতে পারে।

Advertisement

সম্প্রতি বৈদ্যুতিক শকের কারণে ওই বানরটি জখম হয়েছিল, তার চোখও নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। এরপরই বানরটিকে হিসারের লালা লাজপত রায় ইউনিভার্সিটি অফ ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সায়েন্সেস (LUVAS) হাসপাতালে ভর্তি করায় একজন পশুপ্রেমী মুনিশ। হাসপাতালের তথ্য অনুসারে, শুধু হরিয়ানা নয়, গোটা দেশে বানরের ছানির অস্ত্রোপচার এই প্রথম। তবে তাঁরা বানরটির চোখের অপারেশন সফলভাবে করতে পেরে নিজেরাও খুশি। যতই হোক পশু-পাখিদের দেহ মানুষের মতো শক্তপোক্ত নয়, তারা যথেষ্ট স্পর্শকাতর। তাই তাদের অস্ত্রোপচারও স্পর্শকাতর। LUVAS-এর অ্যানিমেল সার্জারি এবং রেডিওলজি বিভাগের প্রধান, আরএন চৌধুরী বলেছেন, বানরটিকে ক্যাম্পাসে নিয়ে এসেছিলেন একজন পশুপ্রেমী মুনিশ, যিনি একজন হ্যান্সির বাসিন্দা, বৈদ্যুতিক শকের কারণে জখম হয়েছিল বাদরটি। প্রথমে হাঁটতে পারত না। কিন্তু অনেক দিনের যত্ন ও চিকিৎসার পর বানরটি হাঁটতে শুরু করে। কিন্ত চিকিৎসকরা এরপর বুঝতে পারেন যে, বানরটি দেখতে পাচ্ছে না, এরপরেই তারা বাদরটির অপারেশন করার দায়িত্ব নেয়।

Advertisement

এরপর চিকিৎসার জন্য বানরটিকে লুভাসের সার্জারি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণী চক্ষু ইউনিটে পরীক্ষার পর ডঃ প্রিয়াঙ্কা দুগ্গাল দেখতে পান বানরের দুই চোখে সাদা ছানি হয়েছে। এক চোখের ভিট্রিয়াসও নষ্ট হয়ে গিয়েছিল, তাই অন্য চোখে অপারেশন করা হয়েছিল এবং অস্ত্রোপচারের পর বানরটি দেখতে পাচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন তিনি। ছানি একটি সাধারণ চোখের রোগ যা লেন্সের স্বচ্ছতার সম্পূর্ণ বা আংশিক ক্ষতি দ্বারা চিহ্নিত করা হয়।

Advertisement
Tags :
Advertisement