For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

বিশ্বভারতীর বিতর্কিত ফলক নিয়ে মুখ খুললেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, কী জানালেন?

09:34 PM Dec 07, 2023 IST | Sundeep
বিশ্বভারতীর বিতর্কিত ফলক নিয়ে মুখ খুললেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী  কী জানালেন
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: ইউনেস্কোর স্বীকৃতির পরে বিশ্বভারতীতে যে ফলক বসানো হয়েছিল, তাতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাম না রাখার কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি কেন্দ্র। বৃহস্পতিবার রাজ্যসভায় এক প্রশ্নের জবাবে এমনটাই জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি ও পর্যটন মন্ত্রী জি কিষেণ রেড্ডি। অর্থা‍ৎ, ফলক থেকে বিশ্বকবির নাম বাদ দেওয়ার অপকর্মের হোতা ছিলেন বিশ্বভারতীর অপসারিত ‘কলঙ্কিত’ উপাচার্য বিদ্যু‍ৎ চক্রবর্তী। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সমগোত্রীয় হতেই ‘গাঁয়ে মানে না আপনি মোড়ল’ এর মতো কবিগুরুর নাম বাদ দিয়ে নিজের নাম বসিয়েছিলেন তিনি।

Advertisement

গত সেপ্টেম্বরে কবিগুরুর বিশ্বভারতীকে বিশ্ব ঐতিহ্যক্ষেত্র বা ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট’ হিসাবে স্বীকৃতি দেয় ইউনেস্কো। আর ওই খবরে রীতিমতো খুশির জোয়ারে ভেসে যান দেশ-বিদেশজুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রবীন্দ্র অনুরাগীরা। এই উপলক্ষে বিশ্ব-ঐতিহ্যের পরিচিতি বহনকারী একাধিক ফলক বসানো হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন জায়গায়। আর তা নিয়েই শুরু হয় বিতর্ক। বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ নির্মিত সেই ফলকে আচার্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং ত‍ৎকালীন উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তীর নাম জ্বলজ্বল করলেও ফলকে কোথাও স্থান পায়নি স্রষ্টা রবীন্দ্রনাথের নাম!

Advertisement

আর ওই ন্যক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদে গর্জে ওঠেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ রাজ্যের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, শান্তিনিকেতনের আশ্রমিক এবং রবীন্দ্র অনুরাগীরা। শেষ পর্যন্ত সমালোচনার মুখে পড়ে ওই বিতর্কিত ফলক সরানোর নির্দেশ দেয় কেন্দ্র। উপচার্য পদ থেকেও কার্যত গলাধাক্কা দেওয়া হয় বিদ্যু‍ৎকে।  মঙ্গলবারই নয়া ফলক বসানো হয়। ওই ফলকে বিশ্বভারতীর স্রষ্টা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাম রয়েছে। এদিন রাজ্যসভায় কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি ও পর্যটন মন্ত্রী জি কিষেণ রেড্ডি জানিয়েছেন, ‘শান্তিনিকেতনে ইউনেস্কোর স্বীকৃতি নিয়ে স্থাপিত ফলকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাম বাদ দেওয়ার কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। ফলকে যে লেখা রয়েছে তা ইউনেস্কোর অপারেশনাল গাইডলাইন মেনেই চূড়ান্ত করা হয়েছে। ওই ফলকে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাম অন্তর্ভুক্ত রয়েছে এবং শান্তিনিকেতন প্রতিষ্ঠায় তাঁর গুরুত্বপূর্ণ অবদানের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।’

Advertisement
Tags :
Advertisement