For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

CBI রিপোর্টে মুখ পুড়ল বিজেপির, খুনের নেপথ্যে পরকিয়া

বিজেপি কর্মী দিলীপ কীর্তনিয়া খুনের ঘটনায় জড়িত নয় কোনও তৃণমূল কর্মী। খুন করিয়েছে দাদা দীননাথ কীর্তনিয়া। রিপোর্ট CBI'র।
09:47 AM Jan 11, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
cbi রিপোর্টে মুখ পুড়ল বিজেপির  খুনের নেপথ্যে পরকিয়া
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: ২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকেই পুরুলিয়ার বুকে একের পর বিজেপি(BJP) কর্মীর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটতে শুরু করে। উনিশের লোকসভা নির্বাচনে সেই পুরুলিয়ার মাটিতে বিজেপির জয়ের পরে রাজ্যজুড়ে একের পর এক জেলায় বিজেপি কর্মীদের মৃত্যুর ঘটনা ঘটতে শুরু করে। প্রতিটি ক্ষেত্রেই বিজেপির তরফ থেকে অভিযোগ করা হয় তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বা তৃণমূল(TMC) কর্মীরা এইসব খুন করেছে। একুশের বিধানসভা নির্বাচনে সেই খুনখারাপির ঘটনা আরও বেড় যায়। তার জেরে আদালত থেকে CBI তদন্তের নির্দেশও দেওয়া হয়। কিন্তু হাতেগোনা ২-৩টি জায়গা ছাড়া কোথাও অভিযোগের সারবত্তা প্রমাণিত হয়নি। উপরন্তু এবার লোকসভা নির্বাচনের মুখ CBI রিপোর্টে মুখ পড়ল বিজেপির। কেননা নদিয়া(Nadia) জেলার কল্যাণী মহকুমার চাকদা থানার রাউতাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের একতারপুর এলাকায় এক বিজেপি কর্মীর খুনের ঘটনায়(Dilip Kirtania Murder Case) কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সাফ জানিয়ে দিয়েছে, এই খুনের সঙ্গে তৃণমূলের কেউ জড়িত নয়। এর পিছনে কোনও রাজনীতিও নেই। আছে পরকিয়া। দাদার বউয়ের সঙ্গে প্রেম করার জেরে সেই দাদাই এই খুনের ঘটনা ঘটিয়েছে।

Advertisement

জানা গিয়েছে, একুশের ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনায় চাকদা থানার একতারপুর এলাকায় খুন হন স্থানীয় বিজেপি কর্মী দিলীপ কীর্তনিয়া। সেই ঘটনায় বিজেপি তেঁড়েফুঁড়ে আসরে নেমে পড়ে রাজনৈতিক ফায়দা লুঠতে। স্থানীয় তৃণমূল কর্মীদের বাড়ি ভাঙচুর করার পাশাপাশি জাতীয় সড়ক এবং রেলপথ অবরোধ করে তাঁরা ব্যতিব্যস্ত করে তুলেছিল জেলা প্রশাসনকে। পাশাপাশি এই ঘটনাকে জাতীয় স্তরে হাজির করাতে মৃত বিজেপি কর্মীর দাদা দীননাথ কীর্তিনিয়া সহ গোটা পরিবারকে দিল্লিও নিয়ে গিয়েছিল বঙ্গ বিজেপি নেতৃত্ব। পাশাপাশি এই ঘটনার CBI তদন্তের দাবিতে আদালতে মামলাও করেছিল। আদালত সেই দাবি মেনেও নেয়। কল্যাণী মহকুমা আদালত CBI তদন্তের নির্দেশও দেয়। সেই নির্দেশের জেরে ঘটনার তদন্তে নামে ওই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকেরা। তদন্ত শেষে কল্যাণী মহকুমা আদালতে গত ২৯ ডিসেম্বর সেই খুনের ঘটনার চার্জশিট জমা দিয়েছে CBI। সেখানেই স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, কোনও রাজনৈতিক কারণে খুন হননি দিলীপ কীর্তনিয়া। পরিবারেরই এক মহিলার সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়েই খুন হতে হয়েছে তাঁকে। পাশাপাশি মৃতের দাদাকেই এই খুনের মূল ষড়যন্ত্রকারী বলে দাবি করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

Advertisement

এই ঘটনা এখন সামনে আসতেই কার্যত মুখ পুড়ছে বঙ্গ বিজেপি নেতৃত্বের। যে দাদাকে নিয়ে তাঁর দিল্লিতে গিয়ে জাতীয় স্তরের রাজনীতিতে ‘বাংলার তৃণমূলী সন্ত্রাস’ তুলে ধরতে চেয়েছিল, সেই দাদাকেই এবার নিজের ভাইকে খুনের অভিযোগে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে দিয়েছে CBI। কার্যত মুখ পুড়ছে বিজেপির। কেননা বিজেপির তরফে এই খুনের ঘটনায় ৯জন তৃণমূল কর্মীর নামে FIR করা হয়েছিল চাকদা থানায়। সেই ৯জনের মধ্যে ৪জনকে পুলিশ গ্রেফতারও করে। যদিও পরে তাঁরা জামিনে ছাড়া পান। কেননা তাঁদের এই খুনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কোনও অভিযোগ মেলেনি। আর এবার তো খোদ CBI জানিয়ে দিল, খুনের পিছনে কোনও রাজনীতিই নেই। আছে পরকিয়া। দাদার বউয়ের সঙ্গে প্রেম। আত্র জেরে দাদাই ষড়যন্ত্র করে খুন করিয়েছে ভাইকে। মজার কথা CBI কল্যাণী মহকুমা আদালতে দিলীপ কীর্তনিয়া খুনের ঘটনার চার্জশিট জমা দেওয়া পর থেকেই গা ঢাকা দিয়েছেন দিলীপবাবুর দাদা দীননাথ কীর্তনিয়া।

Advertisement
Tags :
Advertisement