For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

কেন্দ্রীয় বাহিনীর পাশাপাশি ভোট নিরাপত্তায় থাকছে রাজ্য পুলিশও

আগামী ১৯ এপ্রিল বাংলায় প্রথম দফার ভোটে কেবল কেন্দ্রীয় বাহিনী নয়, নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে ১০ হাজারেরও বেশি রাজ্য পুলিশ।
05:43 PM Apr 11, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
কেন্দ্রীয় বাহিনীর পাশাপাশি ভোট নিরাপত্তায় থাকছে রাজ্য পুলিশও
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: আগামী ১৯ এপ্রিল বাংলা(Bengal) তথা দেশে লোকসভা নির্বাচনের(Loksabha Election 2024) প্রথম দফার ভোটগ্রহণ(First Phase Voting) করা হবে। বাংলার বুকে সেদিন কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়ি লোকসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ করা হবে। বিরোধীরা প্রথম থেকেই দাবি তুলেছিল, লোকসভা নির্বাচনে বাংলার সব বুথে শুধুমাত্র কেন্দ্রীয় বাহিনী(Central Force) দিয়েই ভোট করাতে হবে। রাজ্য পুলিশকে(West Bengal State Police) সেখানে জায়গা দেওয়া যাবে না। কিন্তু সময় যত গড়াচ্ছে ততই কেন্দ্রীয় বাহিনীর অপ্রতুলতা সামনে আসছে। আর তাই এবার জানা যাচ্ছে, আগামী ১৯ এপ্রিল বাংলায় প্রথম দফার ভোটে কেবল কেন্দ্রীয় বাহিনী নয়, নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে রাজ্য পুলিশও। প্রথম দফার তিনটি কেন্দ্রে সেদিন ১০ হাজারেরও বেশি রাজ্য পুলিশ মোতায়েন করবে নির্বাচন কমিশন(ECI)। বাংলার বিভিন্ন জেলা থেকে ভোটের অন্তত ৩ দিন আগে পুলিশ পৌঁছে যাবে উত্তরবঙ্গের ওই কেন্দ্রগুলিতে। আর কমিশনের এই সিদ্ধান্তই কার্যত বিরোধীদের থোঁতা মুখ আরও ভোঁতা করে দিল।

Advertisement

আগামী ১৯ এপ্রিল বাংলার যে ৩টি লোকসভা কেন্দ্রে ভোট নেওয়া হবে তার মধ্যে আছে মোট ২১টি বিধানসভা কেন্দ্র। ওই ২১টি বিধানসভা কেন্দ্রে ২৬৩ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে আলিপুরদুয়ারে ৬৩ কোম্পানি, কোচবিহারে ১১২ কোম্পানি ও জলপাইগুড়িতে ৭৫ কোম্পানি বাহিনী মোতায়েন করা হবে বলে নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে। জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহার মিলিয়ে মোট বুথের সংখ্যা ৫,৮১৪টি। সম্পূর্ণ কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে ভোট করাতে হলে প্রতি বিধানসভা কেন্দ্রে ১৬ থেকে ১৮ কোম্পানি বাহিনীর প্রয়োজন। সেই হিসাবে মোট ৩৭৮ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনীর প্রয়োজন শুধুমাত্র প্রথম দফার ভোটগ্রহণের জন্য। সেটাই আবার বাংলার ৩টি কেন্দ্রের জন্য। অথচ এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ৩ দফায় ১৭৭ কোম্পানি বাহিনীই এসে পৌঁছেছে। ১৯ তারিখের আগে আরও ১০০ কোম্পানি আসার কথা আছে।

Advertisement

এই অবস্থায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর শূণ্যস্থান পূরণের জন্য কমিশন রাজ্য পুলিশের ওপরেই ভরসা রাখছে। ওই ৩ কেন্দ্রে তাই মোট ১০ হাজার ৮৭৫ জন পুলিশকর্মী মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। ওই ১০ হাজার ৮৭৫ জন পুলিশকর্মীর মধ্যে ৩,৯৫৭ জন সশস্ত্র পুলিশ থাকবেন। ভোটের তিন দিন আগে অর্থাৎ আগামী ১৬ এপ্রিলের মধ্যে ওই পুলিশকর্মীদের নির্দিষ্ট কেন্দ্রে পৌঁছে যেতে বলা হয়েছে। এদিকে ওই ৩টি কেন্দ্রের নির্বাচনের জন্য আগামী ১৩ এপ্রিল একটি বৈঠকে বসতে চলছে নির্বাচন কমিশন। সেই বৈঠকে থাকবেন জাতীয় নির্বাচন কমিশনের কমিশনার পর্যায়ের আধিকারিকরা। মূলত বাহিনী মোতায়েন সহ ভোট প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করতে ভার্চুয়ালি এই তিন কেন্দ্রের জেলাশাসক তথা ডিস্ট্রিক্ট ইলেকশন অফিসারদের নিয়ে বৈঠক করবেন জাতীয় নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকরা। বৈঠক থাকতে বলা হয়েছে ওই তিন কেন্দ্রের রিটার্নিং অফিসারদেরও। ভোট প্রস্তুতি তথা আইন - শৃঙ্খলা নিয়ে আলোচনা করতেই এই বৈঠক ডাকা হয়েছে বলে কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে।  

Advertisement
Tags :
Advertisement