For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

১২ এপ্রিল মুক্তি 'চমকিলা', কে ছিলেন অমর সিং চমকিলা, কেন খুন হলেন?

শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন এবং খালিস্তান প্রতিষ্ঠার আহ্বান সন্ত্রাস, গুপ্তহত্যা, বোমাবর্ষণ, পুলিশি বর্বরতা এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারণে চিহ্নিত ছিল। আর সেগুলি গানে ব্যক্ত করতেন তিনি।
05:55 PM Apr 11, 2024 IST | Sushmitaa
১২ এপ্রিল মুক্তি  চমকিলা   কে ছিলেন অমর সিং চমকিলা  কেন খুন হলেন
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: আগামী ১২ এপ্রিল নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাচ্ছে স্বনামধন্য পরিচালক ইমতিয়াজ আলির 'চমকিলা'। ২০২৪ সালে নেটফ্লিক্সের বড় রিলিজ এই ছবি। ছবিটি পঞ্জাবের তরুণ গায়ক অমর সিং চমকিলার জীবনী অবলম্বনে নির্মিত। যাঁকে মাত্র ২৭ বছর বয়সে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল। হয়তো তাঁকে নতুন প্রজন্ম চেনেই না। এবার এই ছবির সুবাদেই গোটা বিশ্বের সঙ্গে পরিচয় হবে প্রয়াত গায়ক অমর সিং চমকিলার। পঞ্জাবের রকস্টার গায়ক অমর সিং চমকিলাকে জীবন্ত করবে এই ছবি। দারিদ্র্যের ছায়া থেকে বেরিয়ে এসে, কীভাবে রকস্টার হয়ে উঠেছিলেন অমরজিৎ, এবং কেন মারা গেলেন সবটা নিয়েই তৈরি চমকিলা। ছবিতে প্রয়াত গায়কের চরিত্রে অভিনয় করবেন দিলজিৎ দোসাঞ্জ এবং তাঁর স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করবেন পরিণীতি চোপড়া। ইতিমধ্যেই ছবির টিজার, গান, ট্রেলার সংলাপ মন ছুঁয়ে গিয়েছে দর্শকদের। নেটফ্লিক্স সূত্রের খবর, আগামিকাল এই ছবি দেখার জন্যে অনেক নতুন সাবস্ক্রাইবারও পেয়েছে নেটফ্লিক্স। আসলে এমন হারিয়ে যাওয়া গায়কের জীবনী জানতে চান সকলেই।

Advertisement

৮০-এর দশকে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন, পঞ্জাবের এই তরুন গায়ক। যাঁকে পাঞ্জাবের মেহসামপুরে অনুষ্ঠানে প্রকাশ্যে মঞ্চের মধ্যে হত্যা করা হয়। কিন্তু তাঁকে কেন অকালেই চলে যেতে হল। এমনকী ৫০ বছর পরেও তাঁর খুনের কোনও কিনারা হয়নি। ১৯৬০ সালের ২১ শে জুলাই, লুধিয়ানার নিকটবর্তী দুগরিতে জন্মগ্রহণ করেন অমর সিং চমকিলার। যার আসল নাম ছিল ধনিরাম। কর্তার কৌর এবং হরি সিং সান্দিলার কনিষ্ঠ সন্তান ছিলেন তিনি, লুধিয়ানা কাপড়ের মিলে যোগদানের আগে একজন ইলেকট্রিশিয়ান হতে চেয়েছিলেন অমর সিং চমকিলা। এরপর ৮০ দশকের গোড়ার দিকে গাওয়া শুরু করেন, অল্পদিনেই জনপ্রিয়তাও অর্জন করেন। এরপর নিজস্ব ব্যান্ড চমকিলা গঠন করেন। আসলে চমকিলার বেশিরভাগ গানই ছিল ইঙ্গিত পূর্ণ, বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কযুক্ত। তিনি সমাজের নানা অনৈতিক কাজকর্ম থেকে, অ্যালকোহল এবং মাদকের ব্যবহার নিয়েও গান বাঁধত। গানের মাধ্যমেই তিনি শুধু পঞ্জাব নয়, বিদেশে বসবাসকারী পাঞ্জাবিদের মধ্যেও জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন।১৯৭৯-১৯৮৮ সাল পর্যন্ত, চমকিলা পঞ্জাবের সঙ্গীতের ল্যান্ডস্কেপ শাসন করেছিলেন। 

Advertisement

তাঁর বেশিরভাগ গানেই ফুটে উঠত গ্রামের জীবন, মাদকের অপব্যবহার, যৌতুক, মদ্যপান এবং পাঞ্জাবি পুরুষত্বের বিষয। নিজেই লিখতেন গান। তবে তাঁর গানগুলি অতিরিক্ত তীক্ষ্ণ শোনাত বিরোধীদের কাছে। তাই অনেক বিরোধিতাকারী তাকে এমন গানের জন্য নিন্দা করেছেন। এবং তাঁকে অশ্লীল এবং দ্বৈত মনোভাব পূর্ণ বলতেন। কিন্তু অসংখ্য লাইভ শো করেছেন তিনি, অল্প কেরিয়ারেই তাঁর গানের ক্যাসেট বিক্রি হত লাখ লাখ। মাত্র ২৭ বছরেই কিংবদন্তি মর্যাদা পেয়ে যান তিনি। এরপর গুরমাইল কৌর নামে একজনের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। তাঁর স্ত্রীও অমরজিতের সঙ্গে গাইতে শুরু করেন। দুজনে জুটি হিসেবে উল্লেখযোগ্য সাফল্যও অর্জন করেন। অমরজিৎ কৌর ছিলেন প্রথম পঞ্জাবি গায়ক যিনি খ্যাতিমান কবি শিব কুমার বাটালভির কবিতা গেয়েছিলেন এবং সাংরুরের মোহাম্মদ সাদিক, যিনি বর্তমানে ফরিদকোট থেকে সংসদ সদস্য। প্রথমে অমরজিৎ চমকিলা কোরাস গাইতেন। যেখানে তিনি ১০০ টাকা পারিশ্রমিক পেতেন।

কিন্তু পরিবার চালানোর জন্য তিনি নিজেই পাড়ায় পাড়ায় গাওয়া শুরু করেন। সমাজের নানারকম কর্মকান্ড গানের আকারে তুলে ধরেন অমর সিং। সেটাতেই তিনি বিরোধীদের নজরে পড়েন। তিনি বেশ কয়েকটি পঞ্জাবি চলচ্চিত্রের জন্য গেয়েছিলেন। শো-এর জন্য কানাডা এবং দুবাইতে ব্যাপকভাবে ভ্রমণ করেছেন। তিনি এক বছরে প্রায় ৩৬৫ টি শো করতেন। বিশেষত চমকিলার সঙ্গীতের পটভূমি ছিল পাঞ্জাবের বিদ্রোহ, যা ১৯৮৪ সালের শিখ দাঙ্গার পরে গতি লাভ করে। শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন এবং খালিস্তান প্রতিষ্ঠার আহ্বান সন্ত্রাস, গুপ্তহত্যা, বোমাবর্ষণ, পুলিশি বর্বরতা এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারণে চিহ্নিত ছিল। আর সেগুলি গানে ব্যক্ত করতেন তিনি। এই কারণে তিনি সন্ত্রাসের কাছে চিঠির আকারে বেনামে মৃত্যুর হুমকাও পেয়েছিলেন।যার জন্যে কয়েকদিন ধরে তার বন্ধুদের বাড়িতে লুকিয়ে ছিলেন। আসলে তাঁকে তাঁর গানে এ সমস্ত শব্দ ব্যবহার না করে করার হুমকি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি শোনেননি। শীঘ্রই কাজে ফিরে আসেন।

এরপর ১৯৮৮ সালে ৮ মার্চ চমকিলা এবং অমরজিত দুজনকেই একটি মোটরসাইকেল চালকের দ্বারা তাঁদের গাড়ি থেকে নামার পথে গুলি করে হত্যা করা হয়। এই হত্যাকাণ্ডে তাঁদের ব্যান্ডের আরও দুই সদস্য নিহত হন। তবে এই মামলার কোনো নিষ্পত্তি এখনও হয়নি এবং কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। এই হত্যাকাণ্ডের পেছনে শিখ জঙ্গিদের হাত রয়েছে বলে অভিযোগ। চমকিলাকে এখনও পাঞ্জাবের তৈরি করা সেরা লাইভ-স্টেজ পারফর্মারদের একজন হিসাবে বিবেচনা করা হয়। প্রতিবেদন অনুসারে, অমিত ত্রিবেদী একবার চমকিলাকে "একজন কিংবদন্তী, পাঞ্জাবের এলভিস" বলে অভিহিত করেছিলেন। এমনকি এটাও জল্পনা রয়েছে যে, তিনি ছিলেন নিম্নবিত্ত আর তার স্ত্রী ছিলেন উচ্চবিত্ত। তাই তাঁর শ্বশুরবাড়ির লোকেরাই তাঁকে মেরে ফেলে। কিন্তু এই ঘটনার কোনও সত্যতা নেই। কারণ তাঁর মৃত্যুতে এখনও এখনও কোনও কুল কিনারা হয়নি।

অমর সিং চমকিলা জীবনী ছবি আগামিকাল রিলিজ হচ্ছে। ছবির টিজার আসার পরেই হৈচৈ পড়ে গিয়েছাল নেটদুনিয়ায়। ছবিতে কণ্ঠ দিয়েছেন দিলজিৎ দোসাঞ্জ এবং পরিণীতি দুজনাই, মিউজিক দিয়েছেন এ আর রহমান। চলচ্চিত্র প্রসঙ্গে ইমতিয়াজ একটি বিবৃতিতে বলেছিলেন, “আমি এই ছবিতে অভিনয় করার জন্য অসীম প্রতিভাবান দিলজিৎ দোসাঞ্জ এবং পরিণীতি চোপড়ার চেয়ে আর ভাল অভিনেতা পেতাম না।" গায়ক-অভিনেতা দিলজিৎ দোসাঞ্জ বলেন, 'অমর সিং চামকিলা চরিত্রে অভিনয় করা তাঁর জীবনের অন্যতম চ্যালেঞ্জিং অভিজ্ঞতা। পরিণীতি এবং পুরো টিমের সঙ্গে কাজ করতে পেরে আনন্দিত।' পরিণীতি চমকিলার জন্য রণবীর কাপুর, সন্দীপ রেড্ডির অ্যানিমালের প্রস্তাব নাকচ করে বলেন, “এই অবিশ্বাস্য ছবিতে চমকিলার গায়ক সঙ্গী এবং স্ত্রী অমরজিত চরিত্রে অভিনয় করতে পেরে আমি ইমতিয়াজ স্যারের কাছে সত্যিই কৃতজ্ঞ।"

Advertisement
Tags :
Advertisement