For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

বিক্ষোভ ঠেকাতে মানুষের সমস্যার সমাধান করার পথ বেছে নিলেন শতাব্দী

দলের শীর্ষ নেতৃত্বের তরফে শতাব্দীর কাছে নির্দেশ গিয়েছে আমজনতার সঙ্গে সারাবছর ধরে জনসংযোগ বজায় রাখতে। তাতেই ভোলবদল সাংসদের।
05:20 PM Jun 13, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
বিক্ষোভ ঠেকাতে মানুষের সমস্যার সমাধান করার পথ বেছে নিলেন শতাব্দী
Courtesy - Facebook
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: তিনি ৪ দফার সাংসদ। ২০০৯, ২০১৪, ২০১৯ সালের পরে এবারে অর্থাৎ ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনেও(Loksabha Election 2024) জয়ী হয়েছেন তিনি। কিন্তু একই সঙ্গে এটাও সত্যি যে, এবারে লোকসভা নির্বাচনের সময়ে ভোট প্রচারে নামার বেশ আগে থেকেই নিজ সংসদীয় এলাকাতেই একের পর এক জায়গায় বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছিল তাঁকে। কোথাও অভিযোগ ছিল খাবার জল নেই, কোথাও অভিযোগ রাস্তা সারাই হয়নি, কোথাও বা অভিযোগ সরকারি প্রকল্পের সুবিধা মেলেনি। এবার চতুর্থবারের জন্য সাংসদ হয়ে তিনি আমজনতার এই সব ক্ষোভ তথা অভিযোগ প্রশমণের দিকেই বেশি জোর দিতে চাইছেন, যাতে আগামী দিনে এই ধরনের বিক্ষোভের মুখে তাঁকে পড়তে না হয়। তিনি শতাব্দী রায়(Satabdi Roy)। অনুব্রত মণ্ডলের(Anubrata Mondol) জেলা তথা বীরভূম লোকসভা কেন্দ্রের(Birbhum Constituency) ৪ দফার তৃণমূল সাংসদ(TMC MP) তিনি।

Advertisement

জেলা তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, দলের শীর্ষ নেতৃত্বের তরফে শতাব্দীর কাছে নির্দেশ গিয়েছে আমজনতার সঙ্গে সারাবছর ধরে জনসংযোগ বজায় রাখতে। সেই সূত্রেই আমজনতার অভিযোগগুলির সত্যতা যাচাই করতেও বলা হয়েছে তাঁকে। তারপর জনতার চাহিদা মেনে সাংসদ তহবিলের অর্থ বরাদ্দ করতে বলা হয়েছে, তাঁকে। ঘটনা হচ্ছে, লোকসভা নির্বাচনের প্রচার শুরু হওয়ার আগেই নিজ সংসদীয়ে কেন্দ্রে বেশ কিছু এলাকায় গিয়ে বিক্ষোভের সম্মুখীন হয়েছিলেন শতাব্দী রায়। মানুষজন তাঁকে ঘিরে নানান অভিযোগ তুলে ধরেন সেই সময়ে। কেউ অভিযোগ করেন পানীয় জল নেই, কেউ বলেন রাস্তা খারাপ, কারও দাবি বাড়ি চাই, কেউ আবার স্থানীয় নেতৃত্বের ওপর ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন তাঁদের সাংসদের কাছে। তবে সেই সময় বেশ বিচক্ষণতার পরিচয় দিয়েছিলেন শতাব্দী। অভিযোগ শুনে এড়িয়ে না গিয়ে ভালোভাবে সকলের কথা শুনেছিলেন, আর সেসব অভিযোগ নিজের খাতায় লিখে রেখেছিলেন। এবার সেই অভিযোগগুলি নিষ্পত্তি করার জন্য মাঠে নামছেন তিনি।

Advertisement

প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে দিল্লি থেকে সাংসদ হিসাবে শপথ নিয়েই বীরভূমে ফিরবেন শতাব্দী। আর তার পরে পরেই দলীয় নেতাদের সঙ্গে আগামীর কর্মপ্রণালী নিয়ে আলোচনায় বসবেন তিনি। সেই বৈঠক হতে পারে রামপুরহাটে অথবা সিউড়িতে। মাঠে নেমে প্রাথমিকভাবে যেসব অভিযোগ পেয়েছিলেন সেই সব অভিযোগ কতখানি সত্যি তা খতিয়ে দেখবেন তিনি। এলাকাগুলিতে সরেজমিনে দেখতে যাবেন তিনি। অভিযোগের সারবত্তা মিললে, সেই সব সমস্যার সমাধান করবেন তিনি। বীরভূম জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব সূত্রে জানা গিয়েছে, দলের জেলা কোর কমিটি খুব শীঘ্রই জয়ী সাংসদের সঙ্গে বৈঠকে বসবে। এরপর কোন এলাকায় কী কী কাজ করার প্রয়োজন আছে, তার জন্য তাঁর কাছে প্রস্তাব দেওয়া হবে। শতাব্দী নিজেও জানিয়েছেন, ‘প্রাথমিকভাবে যেসব অভিযোগ পেয়েছিলাম, সেগুলি খতিয়ে দেখব। সেইসঙ্গে এলাকাগুলিতেও সরেজমিনে যাব। বাসিন্দাদের অভাব অভিযোগ শুনব। অভিযোগের সারবত্তা মিললে, আমার সাধ্যমতো করে দেব। আমি যে পালিয়ে যাওয়ার লোক নই, তা এতদিনে  বীরভূমের মানুষজন বুঝে গেছেন।’

Advertisement
Tags :
Advertisement