For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

ধূপগুড়ি মহকুমার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরে পরেই ট্যুইট শুভেচ্ছা মমতার

সরকারি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হতেই ধূপগুড়ির বাসিন্দাদের এদিন ট্যুইট করে শুভেচ্ছা দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ট্যুইট করেন অভিষেকও।
03:50 PM Jan 19, 2024 IST | Koushik Dey Sarkar
ধূপগুড়ি মহকুমার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরে পরেই ট্যুইট শুভেচ্ছা মমতার
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: কলকাতা বইমেলার উদ্বোধন করতে এসে গতকাল অর্থাৎ বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee) জানিয়ে দিয়েছিলেন উত্তরবঙ্গের(North Bengal) জলপাইগুড়ি জেলার(Jalpaiguri District) ধূপগুড়িকে পৃথক মহকুমা(Dhupguri Sub Division) করার বিষয়ে যে আইনি জট ছিল তা কেটে গিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর সেই ঘোষণার পরই গতকাল সন্ধ্যা থেকেই ধূপগুড়িতে কার্যত উৎসব শুরু হয়ে যায়। শুক্র সকালে সেই মর্মে সরকারি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হতেই ধূপগুড়ির বাসিন্দারা আবির খেলায় মেতে ওঠেন। তার পরে পরেই ট্যুইট করে তাঁদের শুভেচ্ছাবার্তা দেন মুখ্যমন্ত্রী। লেখেন, ‘আনন্দের সঙ্গে ঘোষণা করছি ধূপগুড়ির মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ করতে পেরেছে মা-মাটি-মানুষের সরকার। উপনির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পরই ধূপগুড়িকে একটি মহকুমায় উন্নীত করার উদ্যোগ শুরু হয়েছিল। ১২ অক্টোবর আমি ব্যক্তিগতভাবে নিশ্চিত করেছিলাম যে প্রস্তাবটি পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় পাস হয়েছে। আজ ধূপগুড়ি আনুষ্ঠানিকভাবে মহকুমার মর্যাদা পেয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, আইনি সহায়তা এবং প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধার ক্ষেত্রে আরও সুবিধা হবে। এবার আরও নতুন সুযোগ তৈরি হবে। বিভিন্ন সরকারি প্রকল্প ও পরিষেবাতেও সুবিধা বাড়বে।’

Advertisement

এদিন সকালে রাজ্য সরকারের বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ট্যুইট করেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও(Abhishek Banerjee)। সঙ্গে লেখেন, ‘কথা দিয়ে কথা রাখার নামই হল তৃণমূল।’ অস্বীকার করার উপায় নেই যে গতবছর ধূপগুড়ি বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে তৃণমূলের(TMC) বড় প্রতিশ্রুতি ছিল, তারা জিতলে পৃথক মহকুমা হবে। প্রচারে গিয়ে প্রথম সেই কথা জোরের সঙ্গে বলেছিলেন অভিষেক, যা ওই এলাকার মানুষের দীর্ঘ দিনের দাবি ছিল। উপনির্বাচনের প্রচারে অভিষেকের প্রতিশ্রুতি কাজেও দিয়েছিল। একুশের ভোটে বিজেপির(BJP) জেতা আসন ছিনিয়ে নিয়েছিল তৃণমূল। ভোটের পর বিজেপির নেতারাও ঘরোয়া আলোচনায় স্বীকার করে নিয়েছিলেন, শেষ পর্বে অভিষেকের মহকুমা করার প্রতিশ্রুতি ধূপগুড়ির ভোট সমীকরণ বদলে দিয়েছিল। মজার কথা একুশের ভোটের আগে প্রচারে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীও আশ্বাস দিয়েছিলেন পৃথক মহকুমার। কিন্তু তারপরেও সেই নির্বাচনে ধূপগুড়িতে জিততে পারেনি তৃণমূল। অল্প ভোটের ব্যবধানে হলেও জয়ের মুখ দেখেছিল বিজেপি। কিন্তু উপনির্বাচনে আর ভুল করেননি ধূপগুড়ির জনতা।

Advertisement

সেই ভোটের ফল ঘোষণার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে ধূপগুড়িকে পৃথক মহকুমা করার বিষয়ে সিলমোহর পড়েছিল। কিন্তু তা নানাবিধ আইনি জটে আটকে ছিল। সেই জট কেটে গিয়েছে। অভিষেকের অভিমান ছিল, তাঁর ঘোষণা বাস্তবায়িত করতে নবান্ন দেরি করেছে। ডেডলাইন পেরিয়ে গেছে। এর পর কোন মুখ নিয়ে ধূপগুড়িতে ফের যাবেন তিনি? দেরি একটু হয়েছে বটে। কিন্তু ঘরোয়া আলোচনায় মুখ্যমন্ত্রী কাউকে কাউকে বলেছেন, বিশ্বাস করুন, এটা প্রশাসনের ত্রুটি নয়। বিচারবিভাগীয় জটিলতার কারণে আটকে ছিল। গত শনিবার হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি টিএস শিবজ্ঞানমের সঙ্গে তাঁর আলোচনার পর সেই জট কেটে গেছে। গতকাল সন্ধ্যায় নতুন মহকুমা তৈরির খবর সংবাদমাধ্যমকে দেন মুখ্যমন্ত্রী। তার পর এদিন সকালেই বিজ্ঞপ্তিও জারি হয়ে যায়।

Advertisement
Tags :
Advertisement