For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

মানুষের ভালবাসাতেই বিপুল ভোটে জয়ী হলেন দেব, রাজনীতিতে নবাগতা রচনা

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, যে ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান দেবের স্বপ্ন, তা বাস্তবায়িত করতে পদক্ষেপ করবে রাজ্যই। অবশেষে মানুষের সৌজন্যেই তিনবার ঘাটালের সাংসদ পদে বসলেন দেব।৩৫ হাজার ভোটে এগিয়ে গেলেন তিনি।
04:22 PM Jun 04, 2024 IST | Susmita
মানুষের ভালবাসাতেই বিপুল ভোটে জয়ী হলেন দেব  রাজনীতিতে নবাগতা রচনা
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: এত পরিশ্রম, এত আশা, বৃথা গেল না। বিপুল ভোটে জয়ী হলেন তৃণমূলের তারকা প্রার্থী দেব, রচনা। হুগলি থেকে বিপুল ভোটে জিতে গেলেন রচনা বন্দোপাধ্যায়। কলিগ, প্রতিদ্বন্দ্বি বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়কে একেবারে গো হারান হারিয়ে দিলেন বাংলার দিদি নং ১-এর রচনা বন্দোপাধ্যায়। রাজনীতিতে নবাগতা হয়েও একেবারে বোল্ড-আউট করে দিলেন রচনাকে। এ বার লোকসভা নির্বাচনে রাজনীতি থেকেই সরে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন তৃণমূল প্রার্থী তথা নায়ক দেব। কিন্তু ঘাটাল থেকে তাঁর উপরেই আস্থা রেখেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অবশেষে ঘাটাল থেকে তৃতীয়বারের মতো নির্বাচনে দাঁড়াতে রাজি হন দেব। ব্যস, এরপর থেকেই একেবারে নেওয়া-খাওয়া ভুলে প্রচারে নেমে পড়েন তিনি। যদিও ঘাটালের ঘরের ছেলে তিনি। ২০১৪ সাল থেকে সাংসদের দায়িত্ব পালন করছেন অভিনেতা। যদিও এবার তাঁর কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন বিজেপি প্রার্থী হিরণ চট্টোপাধ্যায়।বহুবার তাঁকে কটাক্ষ করেন হিরণ।

Advertisement

কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর গুডবয় দেব সর্বদা আত্মবিশ্বাসী ছিলেন।তিনি জানেন মানুষের কল্যাণের জন্যই মানুষ তাঁকে বেছে নেবেন। এমনকী গতকাল পর্যন্তও তিনি বলে গিয়েছেন জিত নিয়ে তিনি যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী। তিনি এবং তাঁর দলই জিতবে। মানুষ জানে যে, কারা মানুষের জন্যে ভাবে। আর এতে তৃণমূলের নাম সবার আগেই। এদিকে ঘাটালের মানুষের ঘরের নায়ক দেব, ঘাটালে তাঁর প্রচারের ভিডিওগুলি এখনও নেটপাড়ায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। তাঁর আন্তরিকতা দেখে মুগ্ধ সকলে। প্রচারে বেরিয়ে কখনও দলীয় কর্মীর বাড়ি নৈশভোজ সেরেছেন অভিনেতা, আবার কখনও স্থানীয় দোকানে গিয়ে চা খেয়েছেন। আচরণ দিয়ে মানুষের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন অভিনেতা। তাই নিরাশ হল না, ঘাটাল থেকে বিপুল ভোটে জয়ী হলেন দেব তথা দীপক অধিকারী। তিনবার ঘাটালের সাংসদ হলেন।ইতিমধ্যেই চারিদিকে সবুজ আবির নিয়ে উচ্ছ্বাস শুরু হয়েছে। বিপুল ভোটে হেরে গেলেন হিরণ চট্টোপাধ্যায়। টলিউডের ‘চ্যাম্পিয়ন’ বনাম ‘মাচো মস্তানা’!ঘাটালের রাজনৈতিক লড়াই মোটামুটি এই বৃত্তেই ঘোরাফেরা করছিল দেবের। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, যে ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান দেবের স্বপ্ন, তা বাস্তবায়িত করতে পদক্ষেপ করবে রাজ্যই। অবশেষে মানুষের সৌজন্যেই তিনবার ঘাটালের সাংসদ পদে বসলেন দেব।৩৫ হাজার ভোটে এগিয়ে গেলেন তিনি।

Advertisement

অন্যদিকে হুগলি থেকে তৃণমূলের প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছেন বাংলার দিদি নং 1 রচনা বন্দোপাধ্যায়। রাজনীতিতে একেবারেই নবাগতা তিনি। কিন্তু তাঁর উপরেই ভরসা ছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। বাংলার দিদি নং 1, রচনার ভক্তও চারিদিকে। তবে রাজনীতিতে একেবারেই নবাগতা তিনি। কিন্তু কে বলবে, প্রচারে নেমে মাথার ঘাম পায়ে ফেলেছেন রচনা। তারকা রুটিন বন্ধ করে সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিশে গিয়েছিলেন। হুগলির দই, ঘুগনি, অসাধারণ জল খাবারেই মানিয়ে নিয়েছিলেন। যদিও এই নিয়ে অভিনেত্রীকে কম কটাক্ষ শুনতে হয়নি। কিন্তু বরাবরই বলে এসেছেন জিতলে তিনি হুগলির নারী কল্যানে নানারকম কাজ করবেন। অভিনয় ছেড়ে দিয়েছেন অনেকদিন, এককালে উড়িষ্যা, বাংলায় দাপিয়ে অভিনয় করেছেন। কিন্তু ছেলেকে মানুষ করার জন্যেই অভিনয় ছেড়ে দেন। যদিও বর্তমানে তিনি বাংলার দিদি নং 1, আর এই শোয়ের মাধ্যমে এখন তিনি বাংলার ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছেন। তবে এতদিন পর্দায় দেখতে পেত তাঁকে, এখন তিনি সরাসরি মানুষের সঙ্গে মেশার সুযোগ পাবেন। রাজনীতিতে ডেবিউ করেই প্রথম ছক্কা হাঁকালেন। কয়েক হাজার ভোটে লকেটকে হারিয়ে জয়ী হলেন রচনা বন্দোপাধ্যায়। সার্থক হল তাঁর এতদিনের পরিশ্রম। হুগলির মানুষ বুঝিয়ে দিলেন তাঁকেই তারা চান। নতুন কাউকে বসতে দিলেন। বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায় গো হারার হেরে গেলেন রচনার কাছে। এতদিনের হাড়ভাঙা পরিশ্রম সার্থক হল রচনার। হুগলি থেকে তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে জয়ী হলেন রচনা বন্দোপাধ্যায়।

Advertisement
Tags :
Advertisement