For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

রাশিয়া ও চিনকে বোমা মেরে উড়িয়ে দিতে চান ট্রাম্প, বিস্ফোরক তথ্য প্রকাশ্যে

তাঁর এমন মন্তব্যে রীতিমতো হৈচৈ পড়ে গিয়েছে চারিদিকে। এদিকে গত বছর ট্রাম্প দাবি করেছিলেন যে, তিনি ক্ষমতায় আসলে রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধের ‘মীমাংসা’ করতে তাঁর এক মুহূর্তও সময় লাগত না।
01:44 PM May 30, 2024 IST | Susmita
রাশিয়া ও চিনকে বোমা মেরে উড়িয়ে দিতে চান ট্রাম্প  বিস্ফোরক তথ্য প্রকাশ্যে
Advertisement

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: রাশিয়া ও চিনকে বোমা মেরে উড়িয়ে দিতে চান প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট এবং বর্তমান রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্প! তাঁর ক্ষমতা থাকা অবস্থায় যদি ইউক্রেন এবং তাইওয়ানকে আক্রমণ করতো মস্কো এবং বেইজিং, তাহলে দুই দেশকেই তিনি বোমা মেরে উড়িয়ে দিতেন। সম্প্রতি নির্বাচনী প্রচারে বেরিয়ে এমনটাই দাবি করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। মঙ্গলবার ২৮ মে ওয়াশিংটন পোস্ট সূত্রের বরাত দিয়ে আরটির একটি প্রতিবেদন এই বিস্ফোরক তথ্য দিয়েছে। যেখানে উল্লেখ করা হয়েছে যে, প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট এবং বর্তমান রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর নির্বাচনী প্রচারাভিযানের সময় জনগণের উদ্দেশ্যে জানিয়েছেন, তিনি মস্কো এবং বেইজিংকে বোমাবর্ষণ করতেন যদি দেশ দুটি তার ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় ইউক্রেন এবং তাইওয়ানকে আক্রমণ করতো।

Advertisement

তাঁর এমন মন্তব্যে রীতিমতো হৈচৈ পড়ে গিয়েছে চারিদিকে। এদিকে গত বছর ট্রাম্প দাবি করেছিলেন যে, তিনি ক্ষমতায় আসলে রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধের ‘মীমাংসা’ করতে তাঁর এক মুহূর্তও সময় লাগত না। অথচ ইউরোপের নিরাপত্তা ও সহযোগিতা সংস্থায় ট্রাম্পের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্বরত থাকাকালীন জেমস গিলমোর চলতি মাসের শুরুতে তাইওয়ানে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ট্রাম্প কোনও বিচ্ছিনতাবাদী নন। তিনি মিত্রদের প্রতিরক্ষার জন্যে যথাযথ পদক্ষেপ নেবেন। জেমসের বরাত দিয়ে রয়টার্স আরও জানিয়েছে, ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হলে তাইওয়ানকেই সমর্থন করবেন, এটাই তাঁর বিশ্বাস। এদিকে চিন তাইওয়ানকে তার নিজস্ব এলাকা বলে দাবি করেছে, সে দেশের সরকারের আপত্তি থাকা সত্ত্বেও। এমনকী ট্রাম্প যখন ক্ষমতায় ছিলেন তিনিও বাইডেন প্রশাসনের মতো তাইওয়ানকে অস্ত্র বিক্রির মধ্য দিয়ে দেশটির পাশে ছিলেন।

Advertisement

প্রসঙ্গত, গত ফেব্রুয়ারিতে, ট্রাম্প ট্রুথ সোশ্যালে লিখেছিলেন, কারোরই এমন কোনও জায়গায় অর্থ ব্যয় করা উচিত না, যার বিনিময়ে কোনও অর্থ পাওয়া যাবেনা। সবাই যেহেতু ইউরোপীয় দেশ ইউক্রেনীয়দের পক্ষে, তাই ইউরোপের উচিত তাদের জীবনরক্ষার জন্য কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়া।

Advertisement
Tags :
Advertisement