For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

বাইডেনের গাজা নীতির প্রতিবাদে চাকরিতে ইস্তফা মার্কিন বিদেশ মন্ত্রকের আধিকারিকের

08:50 PM May 31, 2024 IST | Sundeep
বাইডেনের গাজা নীতির প্রতিবাদে চাকরিতে ইস্তফা মার্কিন বিদেশ মন্ত্রকের আধিকারিকের
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি, ওয়াশিংটন: গাজায় গণহত্যা চালাতে ইজরায়েলি ঘাতক বাহিনীকে পূর্ণ মদত দিয়ে চলেছেন ‘যুদ্ধবাজ’ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ইজরায়েলি বিমান আর বোমা হামলায় ইতিমধ্যেই ৩৬ হাজারের বেশি নিরীহ ফিলিস্তিনি প্রাণ হারিয়েছেন। গাজায় গণহত্যায় লাগাতার মদত জোগানোয় বাইডেন প্রশাসনের উপরে ক্ষুব্ধ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ আধিকারিকরা। ইতিমধ্যেই সরকারের গাজা নীতির প্রতিবাদে ইস্তফা দিতে শুরু করেছেন আধিকারিকদের একাংশ। সেই তালিকায় সর্বশেষ সংযোজন স্টেসি গিলবার্ট।

Advertisement

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিদেশ মন্ত্রকের জনসংখ্যা, শরণার্থী ও অভিবাসন ব্যুরোতে গত ২০ বছর ধরে কর্মরত ছিলেন গিলবার্ট। মঙ্গলবারই তিনি গাজা নীতির প্রতিবাদে ইস্তফা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। আচমকাই কেন ইস্তফা? চলতি মাসের শুরুতে ফিলিস্তিন-ইজরায়েল সঙ্ঘাত নিয়ে ৪৬ পাতার এক প্রতিবেদন তৈরি করেছে মার্কিন বিদেশ মন্ত্রক। ওই প্রতিবেদনে গাজায় আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা ও দেশের ত্রাণ আটকে দেওয়া নিয়ে ইজরায়েলের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খারিজ করে দেওয়া হয়েছে। আর ওই প্রতিবেদনকে সম্পূর্ণ ভুল বলে দাবি করেছেন গিলবার্ট। তাঁর কথায়, ‘ওই প্রতিবেদনে যা বলা হয়েছে তাঁকে সত্যের অপলাপ বললেও ভুল বলা হবে। জলজ্যান্ত মিথ্যা কথা মেনে নিতে পারিনি। তাই ইস্তফার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

Advertisement

বাইডেন প্রশাসনের গাজা নীতি নিয়ে গত মাস দুয়েক ধরেই মার্কিনিদের অসন্তোষ তুঙ্গে উঠেছে। কলম্বিয়া-সহ একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ইজরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভে সামিল হয়েছিলেন পড়ুয়ারা। যদিও ওই বিক্ষোভ থামাতে কঠোর দমন-পীড়নের পথে হেঁটেছে বাইডেন প্রশাসন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পুলিশ ঢুকিয়ে পড়ুয়া ও শিক্ষকদের পেটানো হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে। এমনকি বহু পড়ুয়াকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারও করা হয়েছে। তাতে হিতে বিপরীতই হয়েছে। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জনপ্রিয়তা তলানিতে এসে ঠেকেছে।

Advertisement
Tags :
Advertisement