For the best experience, open
https://m.eimuhurte.com
on your mobile browser.
OthersWeb Stories খেলা ছবিঘরতৃণমূলে ফিরলেন অর্জুন সিংবাংলাদেশপ্রযুক্তি-বাণিজ্যদেশকলকাতাকৃষিকাজ বিনোদন শিক্ষা - কর্মসংস্থান শারদোৎসব লাইফস্টাইলরাশিফলরান্নাবান্না রাজ্য বিবিধ আন্তর্জাতিককরোনাএকুশে জুলাইআলোকপাতঅন্য খবর
Advertisement

‘প্রাক্তন’ বিদ্যুৎ-কে ঘিরে নয়া বিতর্কে বিশ্বভারতী

বিদ্যুৎ চক্রবর্তীর চাকরির মেয়াদ শেষ হয়েছে ৮ নভেম্বর। কিন্তু তিনি এখনও সরকারি বাসভবন ‘পূর্বিতা’ ছাড়েননি। ব্যবহার করছেন সমস্ত সরকারি সুবিধা।
03:40 PM Nov 14, 2023 IST | Koushik Dey Sarkar
‘প্রাক্তন’ বিদ্যুৎ কে ঘিরে নয়া বিতর্কে বিশ্বভারতী
Courtesy - Google
Advertisement

নিজস্ব প্রতিনিধি: তাঁর চাকরির মেয়াদ ফুরিয়েছে চলতি মাসের ৮ তারিখ। তারপর থেকেই তিনি সরকারি ভাবে ‘প্রাক্তন’। অথচ তাঁর অবস্থান ও কাজকর্ম সবই বর্তমানদের মতোই। কেননা তিনি না ছেড়েছেন কোনও সরকারি সুবিধা, না ছেড়েছেন সরকারি বাসভবন। উপরন্তু তিনি নাকি ‘বর্তমান’-কে নানা সময়ে সরাসরি ফোন করে রীতিমত নির্দেশ দিচ্ছেন, ‘এই করতে হবে’, ‘ওটা করলে চলবে না’। যদিও ‘বর্তমান’ জন আর তাঁকে পাত্তা দিতে চাইছেন না। তবে ঝেড়ে ফেলতেও পারছেন না। কেননা, পদ্মশিবিরকে(BJP) ধরে ‘প্রাক্তন’ আবার তাঁর হারানো উপচার্যের পদটি(VC Post) ফিরে পেতে উঠে পড়ে লেগেছেন। নজরে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের(Viswabharati University) প্রাক্তন উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী(Former VC Bidyut Chakrabarty)। গত ৮ নভেম্বর তাঁর চাকরির মেয়াদ শেষ হয়েছে। কিন্তু তিনি এখনও সরকারি বাসভবন ‘পূর্বিতা’ ছাড়েননি। ব্যবহার করছেন সমস্ত সরকারি সুবিধা(Government Facilities)।

Advertisement

ভাতৃদ্বিতীয়ার পরই বিশ্ববিদ্যালয়ে পঠন-পাঠন থেকে শুরু করে সবকিছুই স্বাভাবিক হওয়ার কথা রয়েছে। এর মাঝেই ফের বিশৃঙ্খলার গন্ধ পাচ্ছেন সকলেই। বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মী ও অধ্যাপকদের একাংশের দাবি, প্রাক্তন উপাচার্য পায়ে পা লাগিয়ে মেয়াদ শেষ হবার পরও বিবাদ লাগানোর চেষ্টা করছেন কয়েকজন উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের দিয়ে। তাঁদের সঙ্গেই পূর্বিতায় বৈঠক ও দেখা করা চলছে নিয়মিত। অধ্যাপক সংগঠন অবশ্য পূর্বেই প্রাক্তন উপাচার্য বিদ্যুৎ কেন সরকারি বাংলোয়, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বর্তমান উপাচার্যকে ইমেলে অভিযোগ করেছেন। অধ্যাপক সংগঠনের দাবি, ‘বিশ্বভারতীর ১০ জনের অধিক নিরাপত্তারক্ষী থেকে সমস্ত ধরনের সুযোগ-সুবিধা প্রাক্তন উপাচার্য নিয়ে চলছেন। যা সম্পূর্ণ নজিরবিহীন এবং বেআইনি দখলদারি।’ শুধু তাই নয়, তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের সঙ্গে নিয়মিত বৈঠক এবং দেখাও করছেন। তাঁদের হুকুম দিয়ে আনছেন ‘পূর্বিতা’য়। যদি এপ্রসঙ্গে বিশ্বভারতীর তরফে কোনও উত্তর মেলেনি। কিছু বলেননি বিদ্যুৎবাবু নিজেও।

Advertisement

কিন্তু বিদ্যুৎ কেন এখনও ‘পূর্বিতা’ ছাড়েননি? প্রশ্নের সন্ধানে নেমে ২টি উত্তর উঠে আসছে। প্রথমত, সম্প্রতি পাঁচটি মামলায় উপাচার্যকে তলব করে শান্তিনিকেতন থানার পুলিশ। সেই নোটিসের পরিপ্রেক্ষিতেই কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন বিদ্যুৎ। বিচারপতি জয় সেনগুপ্ত নির্দেশ দেন গ্রেফতারির মতো কোনও কড়া পদক্ষেপ নিতে পারবে না পুলিশ। শুধু এক একটি মামলার জন্য ১ ঘণ্টা করে বিদ্যুতকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারবে পুলিশ। ১৪ নভেম্বরের পরিবর্তে ২০ এবং ২২ নভেম্বর বাড়িতে গিয়ে জিজ্ঞাসা করতে পারবে পুলিশ এমনই নির্দেশ দেওয়া হয়। এই যুক্তি দিয়েই বাসভবনে বেশ কিছুদিন প্রাক্তন উপাচার্য থাকবেন বলেই শোনা যাচ্ছে। দ্বিতীয় মত, শোনা যাচ্ছে ২৪’র ভোটের আগে কেন্দ্র সরকার বিশ্বভারতীতে স্থায়ী উপাচার্য নিয়োগ করবে না। আর সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়েই বিদ্যুৎ পদ্মনেতাদের ধরে ফের বিশ্বভারতীত উপাচার্য পদে ফিরতে চাইছেন। তাই বিশ্বভারতীরও কেউ এখন তাঁকে চট করে ঘাঁটাতে চাইছেন না।

Advertisement
Tags :
Advertisement